default-image

ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ আজ শুক্রবার রাতে তিন দিনের সফরে পশ্চিমবঙ্গে আসছেন।

দিল্লি থেকে সামরিক বাহিনীর বিশেষ উড়োজাহাজে চেপে অমিত শাহর রাত ১১টায় কলকাতার দমদমের নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নামবেন। রাতে অবস্থান করবেন কলকাতার নতুন শহর রাজারহাটের একটি পাঁচ তারকা আবাসিক হোটেলে।

কাল শনিবার সকালে অমিত শাহ আরপিএফের শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন। বৈঠক শেষে যাবেন নদীয়ার মায়াপুরে ইসকন মন্দিরের অনুষ্ঠানে। সেখান থেকে ফিরে তিনি উত্তর চব্বিশ পরগনার ঠাকুরনগরের মতুয়া মহাসংঘের আশ্রম ময়দানে মতুয়া সমাবেশে যোগ দেবেন। এই সমাবেশ থেকে তিনি মতুয়াদের নাগরিকত্ব ও ভারতের সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) নিয়ে তাঁর ঘোষণা দিতে পারেন।

মতুয়া সম্প্রদায় পশ্চিমবঙ্গের ভোটের হিসাবে একটা বড় শক্তি। গত ডিসেম্বরে অমিত শাহ যখন এসেছিলেন, তখন মতুয়ারা সিএএ কার্যকর করার দাবি তোলেন। তখন অমিত শাহ বলেছিলেন, আগে করোনার টিকা দেওয়ার কথা ভাবা হচ্ছে। পরে সিএএ কার্যকর করা নিয়ে তাঁরা এগোতে চান। এমন ঘোষণায় মতুয়াদের মধ্যে তীব্র প্রতিক্রিয়া হয়। তারা কার্যত বিজেপির বিরুদ্ধে চলে যায়। ক্ষোভ প্রকাশ করেন স্থানীয় বনগাঁ আসনের মতুয়া সাংসদ শান্তনু ঠাকুরও। মতুয়াদের ক্ষোভের খবর বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে পৌঁছে যায়। এ অবস্থায় রাজ্যের আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনের কথা মাথায় রেখে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব মতুয়াদের আশ্রমভূমি ঠাকুরনগরে সমাবেশ করার সিদ্ধান্ত নিল।

বিজ্ঞাপন

ঠাকুরনগরের সমাবেশ শেষ করে সন্ধ্যায় অমিত শাহ কলকাতার সায়েন্স সিটির একটি অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। রাত ৮টার দিকে তিনি কলকাতার বাইপাস এলাকায় একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেল উদ্বোধন করবেন।

রোববার সকালে বিএসএফের শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন অমিত শাহ। বৈঠক শেষে যাবেন বালিগঞ্জের ভারত সেবাশ্রম সংঘের একটি অনুষ্ঠানে। সেখান থেকে যাবেন পণ্ডিত ঈশ্বর চন্দ্র বিদ্যাসাগরের বাসভবনে। দুপুরে যোগ দেবেন হাওড়ার ডুমুরজলা স্টেডিয়ামে আয়োজিত বিজেপির সমাবেশে। এই সমাবেশে সদ্য তৃণমূল-ত্যাগী মন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়, বালির বিধায়ক বৈশালী ডালমিয়া, উত্তরপাড়ার বিধায়ক প্রবীর ঘোষাল, হাওড়া পৌর করপোরেশনের সাবেক মেয়র রথীন চক্রবর্তীসহ আরও কজন তৃণমূল নেতার বিজেপিতে যোগদানের কথা রয়েছে।

লক্ষ্মীরতন শুক্লা তৃণমূলের মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করলেও তিনি রোববার বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন কি না, তা জানা যায়নি।

গত ১৯ ডিসেম্বর মেদিনীপুর কলেজ মাঠে আয়োজিত এক সমাবেশে অংশ নিয়েছিলেন অমিত শাহ। সেখানে রাজ্যের ৩১ জন নেতা, সাংসদ, সাবেক মন্ত্রী, বিধায়ক বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন। তাঁদের মধ্যে তৃণমূলের মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীও ছিলেন।

ডুমুরজলার সমাবেশের পর অমিত শাহ যাবেন উলবেড়িয়ার খালিসানি গ্রামের একটি বাগদি বাড়িতে। সেখানে তিনি মধ্যাহ্নভোজ সারবেন। বিকেলে অমিত শাহ উলবেড়িয়ায় আয়োজিত একটি রোড শোতে যোগ দেবেন। বিকেলে কলকাতার একটি মন্দিরে পুজো দিয়ে চলে যাবেন হোটেলে। সেখানে তিনি দলীয় নেতাদের সঙ্গে সাংগঠনিক বৈঠক করবেন। বৈঠক শেষে রাতে তিনি সামরিক বাহিনীর বিশেষ উড়োজাহাজে করে ফিরে যাবেন রাজধানী নয়াদিল্লিতে।

বিজ্ঞাপন
ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন