বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বাবুলের সমালোচনার পাশাপাশি তাঁর দলবদলের জন্য বিজেপিকেও দুষছেন কংগ্রেসের সাবেক নেতা ও আইনজীবী অরুণাভ ঘোষ। তিনি বলেন, বিজেপিও খারাপ। ১৪৮ জন তৃণমূল নেতাকে দলে নিয়ে নির্বাচনের টিকিট দিয়েছে। তার ফল তো ভোগ করতে হবে বিজেপিকে।

অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়েও কথা বলেছেন অরুণাভ ঘোষ। তাঁর ভাষ্য, অভিষেক ঠিক করেননি। তাঁর একটা স্বচ্ছ ভাবমূর্তি রয়েছে। এভাবে বাবুল সুপ্রিয়কে দলে টেনে নেওয়া তাঁর জন্য শোভনীয় হয়নি।

অন্যদিকে সিপিএম নেতা ও সাবেক বিধায়ক সুজন চক্রবর্তীও বাবুল সুপ্রিয়কে একহাত নিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ব্যবসার মতো লাভ–ক্ষতি দেখছেন বাবুল। অঙ্ক কষেন—কোনটায় বেশি লাভ, বেশি সুবিধা। অথচ এবারের বিধানসভা নির্বাচনে এই বাবুল সুপ্রিয় টালিগঞ্জে প্রচার সভায় যোগ দিয়ে বলেছিলেন, মোদির মতো পৃথিবীতে কোনো নেতা নেই। আরও বলেছিলেন, মমতার মতো স্বৈরাচারীও কেউ নেই।

বাবুল সুপ্রিয় একজন প্রখ্যাত নেপথ্য সংগীতশিল্পী, অভিনেতা, সুরকার ও সংগীত পরিচালক। তাঁর বয়স এখন ৫০ বছর। ২০১৪ সালে তিনি প্রথম বর্ধমানের আসানসোল আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে সাংসদ হন। হন কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী। ২০১৯ সালে আবার তিনি একই আসন থেকে সাংসদ হন। তবে এবারের বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি তাঁকে টালিগঞ্জ আসনে বিধায়ক পদে প্রার্থী করে। সেই নির্বাচনে বাবুল সুপ্রিয় হেরে যান। এরপর তিনি তাঁর আগের সাংসদ পদ নিয়ে রাজনীতিতে থেকে যান।

গত ৮ জুলাই কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা পুনর্গঠনের সময় বাদ পড়ে যান বাবুল সুপ্রিয়। বাদ পড়েন এই রাজ্যের অপর প্রতিমন্ত্রী দেবশ্রী চৌধুরীও। এর পরিবর্তে বিজেপি কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় নতুন চারজন প্রতিমন্ত্রীকে অন্তর্ভুক্ত করে। আর এটাই মনেপ্রাণে মেনে নিতে পারেননি বাবুল সুপ্রিয়। তাই দল থেকে তাঁর এই পদত্যাগের সিদ্ধান্ত বলে মনে করছেন এখানকার রাজনীতিবিদেরা।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন