বিজ্ঞাপন

করোনায় বিপর্যস্ত ভারতে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ মারা যাচ্ছেন। অনেক মানুষ হাসপাতালের শয্যা বা অক্সিজেনের অপেক্ষায় অ্যাম্বুলেন্স এবং পার্ক করা গাড়িতে থাকতে থাকতেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েছেন।

আম আদমি পার্টির দিল্লি সরকার জানিয়েছে, আনুষ্ঠানিকভাবে এই রাজ্যে যে পরিমাণ অক্সিজেন দেওয়ার কথা, সেখানে টেনেটুনে অর্ধেক দেওয়া হচ্ছে। অন্যদিকে বিজেপিশাসিত রাজ্যগুলো যেমন হরিয়ানা ও উত্তর প্রদেশ এ ক্ষেত্রে এগিয়ে। কেজরিওয়াল বলেন, ‘অক্সিজেন সংকটের কারণে হাসপাতালগুলোকে তাদের শয্যার সংখ্যা কমাতে হয়েছে...আমি সব হাসপাতালকে তাদের শয্যাগুলোকে পুনঃস্থাপন করতে অনুরোধ করছি। আশা করছি আমরা প্রতিদিন ৭০০ টন করে অক্সিজেন পাব।’

ভারতে গতকাল বুধবার এক দিনে করোনা রোগী শনাক্ত ও মৃত্যুতে নতুন রেকর্ড হয়েছে। গতকাল ৪ লাখ ১২ হাজার ২৬২ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। ভারতে আগে কখনো এক দিনে এত রোগী শনাক্ত হয়নি।

default-image

গতকালের আগে দেশটিতে এক দিনে সবচেয়ে বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছিল গত শুক্রবার, ৪ লাখ ১ হাজার ৯৯৩ জন।
গত ৩০ এপ্রিল ভারতে প্রথম এক দিনে চার লাখের বেশি মানুষের করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ে। তার আগে টানা ৯ দিন ধরে দৈনিক শনাক্তের সংখ্যা ছিল তিন লাখের বেশি।

তারও আগে ১৫ এপ্রিল থেকে দেশটিতে প্রতিদিন দুই লাখের বেশি করোনা রোগী শনাক্ত হচ্ছিল। আর টানা এক সপ্তাহ ধরে ভারতে দুই হাজারের বেশি মানুষ করোনায় মারা যাওয়ার পর গত ২৭ এপ্রিল থেকে দৈনিক মৃত্যু তিন হাজারের ওপরে ওঠে। কয়েক দিন ধরে দেশটিতে গড়ে সাড়ে তিন হাজারের মতো মানুষ করোনায় মারা যাচ্ছেন।
বিশ্বের কোনো দেশে এক দিনে সর্বোচ্চসংখ্যক করোনা রোগী শনাক্তের রেকর্ড এখন ভারতের দখলে। গত ২২ এপ্রিলের আগপর্যন্ত এই রেকর্ড যুক্তরাষ্ট্রের দখলে ছিল। যুক্তরাষ্ট্রে গত জানুয়ারিতে এক দিনে সর্বোচ্চ ২ লাখ ৯৭ হাজার ৪৩০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল।

সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশের তালিকায় যুক্তরাষ্ট্রের পরেই রয়েছে ভারত। ভারতের পর রয়েছে ব্রাজিল। সম্প্রতি সংক্রমণের দিক দিয়ে ব্রাজিলকে টপকে দ্বিতীয় অবস্থানে উঠে আসে ভারত।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন