default-image

ভারতের দিল্লিতে মুখে মাস্ক না থাকলে ২০০০ রুপি জরিমানার ঘোষণা করেছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। আগে এই জরিমানা ছিল ৫০০ রুপি। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী সব রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনগুলোকে জনসমাগম হয় এমন স্থানগুলোতে লোকজনের মধ্যে মাস্ক বিতরণের জন্য আহ্বান জানিয়েছেন।

করোনা পরিস্থিতি নিয়ে আজ বৃহস্পতিবার সব দলের সঙ্গে বৈঠক শেষে কেজরিওয়াল গণমাধ্যমকর্মীদের এসব কথা বলেন। এনডিটিভি ও হিন্দুস্তান টাইমসের খবরে এসব তথ্য জানানো হয়।

গত ২৪ ঘণ্টার হিসাবে দেখা যায়, দিল্লিতে নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৭ হাজার ৪৮৬ জনের। মৃত্যু হয়েছে ১৩১ জনের। এ নিয়ে রাজ্যটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৫ লাখের বেশি; আর মৃতের সংখ্যা ৭ হাজার ৯৪৩।

কেজরিওয়াল লোকজনকে হাত ভাঁজ করে রাখতে, মাস্ক পরাসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে বারবার অনুরোধ জানিয়েছেন। দিল্লিতে করোনার তৃতীয় ঢেউ চলছে। এই মৌসুমে প্রতিদিনই করোনা রোগীর সংখ্যা পাল্লা দিয়ে বাড়ছে। নভেম্বরের শুরু থেকে প্রতি সপ্তাহে আগের রেকর্ড ভাঙছে।

বিজ্ঞাপন

কেজরিওয়াল বলেন, সরকারের পক্ষ থেকে হাসপাতালগুলোকে অ-জরুরি অস্ত্রোপচার পিছিয়ে দিতে আহ্বান জানানো হয়, যাতে কোভিড-১৯ রোগীরা সর্বোচ্চ সেবা পেতে পারেন। উদাহরণ টেনে কেজরিওয়াল বলেন, ‘যদি আপনার টনসিলের অস্ত্রোপচার করতে হয়, তবে তা পরের মাসেও করতে পারেন। কারণ, এটি খুব জরুরি নয়। এই প্রেক্ষাপটে আমরা হাসপাতালগুলোকে অনুরোধ করছি। এ ছাড়া সব বেসরকারি হাসপাতালকে করোনা রোগীদের জন্য আইসিইউ শয্যার ৮০ শতাংশ এবং নন-আইসিইউ শয্যার ৬০ শতাংশ বরাদ্দ রাখতে বলা হয়েছে।

করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে রাজ্য সরকার দিল্লি হাইকোর্টের রোষানলে পড়েছে। কেন বিধিনিষেধ শিথিল করা হলো, তা রাজ্য সরকারের কাছে জানতে চেয়েছেন আদালত। বিয়ের অনুষ্ঠানে কেন অতিথির সংখ্যা নির্দিষ্ট করে দেওয়ার বিষয়ে সরকার ১৮ দিন সময় নিল? এই সময় কোভিডে কতজনের মৃত্যু হলো—এমন নানা প্রশ্ন তোলেন।

রাজ্য সরকার আগে বিয়ের অনুষ্ঠানে ২০০ জন অতিথিকে অনুমোদন দিয়েছিল, কিন্তু এখন তা কমিয়ে ৫০ করা হয়েছে। পুরোপুরি লকডাউন না করে কেজরিওয়াল সব বিপণিবিতান বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত জানান। মনে করা হচ্ছে, মার্কেটই করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার মোক্ষম স্থান।

এনডিটিভির খবরে বলা হয়, গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এক প্রতিবেদনে গত ২৪ ঘণ্টার হিসাবে দেখা যায়, দিল্লিতে নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৭ হাজার ৪৮৬ জনের। মৃত্যু হয়েছে ১৩১ জনের। এ নিয়ে রাজ্যটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৫ লাখের বেশি; আর মৃতের সংখ্যা ৭ হাজার ৯৪৩।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0