default-image

নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতার সংজ্ঞা নতুন করে নির্ধারণ করতে যাচ্ছে অরবিন্দ কেজরিওয়ালের আম আদমি পার্টি (এএপি)। 
এনডিটিভি অনলাইনের প্রতিবেদনে জানানো হয়, ৭০ আসনের দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনের সর্বশেষ পাওয়া ফলাফলে এএপি এগিয়ে ৬৭ আসনে। তিনটি আসনে এগিয়ে ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি)।
সর্বশেষ পাওয়া এই ফলাফল বলছে, এএপির প্রতীক ঝাড়ুর কাছে রীতিমতো নাকানিচুবানি খেয়ে ভরাডুবির পথে বিজেপি। আর কংগ্রেসের তো পাত্তাই নেই।
ফলাফলের এই প্রবণতা সম্পর্কে এনডিটিভির ভাষ্য, কঠিন সংখ্যাগরিষ্ঠতার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে এএপি।
দিল্লির বিধানসভা নির্বাচনে পরাজয় স্বীকার করে নিয়েছেন নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে কেন্দ্রের ক্ষমতায় আসা বিজেপির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। কেজরিওয়ালকে অভিনন্দন জানিয়েছেন তিনি। টুইটারে দেওয়া বার্তায় লিখেছেন, ‘অরবিন্দ কেজরিওয়ালের সঙ্গে কথা বলেছি। জয়ের জন্য তাঁকে অভিনন্দন জানিয়েছি। দিল্লির উন্নয়নে কেন্দ্র পুরোপুরি সমর্থন দেবে বলে তাঁকে নিশ্চয়তা দিয়েছি।’
দিল্লির বিধানসভা নির্বাচনে মুখ্যমন্ত্রী পদে বিজেপির প্রার্থী একসময়ের ডাকসাইটে পুলিশ কর্মকর্তা কিরণ বেদিও টুইটারে দেওয়া বার্তায় কেজরিওয়ালকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।
আজ মঙ্গলবার স্থানীয় সময় সকাল আটটা থেকে দিল্লির বিধানসভা নির্বাচনের ভোট গণনা শুরু হয়। সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে ফলাফলের চিত্র স্পষ্ট হয়ে উঠতে থাকে।
এনডিটিভি অনলাইনের প্রতিবেদনে জানানো হয়, ৭ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনের এএপি ৬৭ আসনে এগিয়ে। বিজেপি এগিয়ে তিনটি আসনে। কোনো আসনেই কংগ্রেস এগিয়ে নেই।
টাইমস অব ইন্ডিয়া অনলাইনের প্রতিবেদনেও একই তথ্য জানানো হয়েছে।
দিল্লির বিধানসভা নির্বাচনে এএপি একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে যাচ্ছে বলে আগেই কেন্দ্রফেরত একাধিক জরিপে আভাস দেওয়া হয়। অভ্যন্তরীণ খবরের ভিত্তিতে এএপি ধারণা করছিল, তারা ৫০ আসনের কম পাবে না। জয়ের আগাম আভাসে দলটির স্বেচ্ছাসেবক ও সমর্থকেরা উল্লাসে মেতে ওঠেন।
কেন্দ্রফেরত জরিপে বিজেপিকে দেওয়া হয়েছিল ২৬ আসন। জরিপের ওই অনুমান প্রত্যাখ্যান করে বিজেপি। বিজেপির ধারণা ছিল, তারা ৩৪ থেকে ৩৮টি আসন পাবে। কিন্তু ফলাফলে সর্বশেষ গতিপ্রকৃতি বলছে, দলটি লজ্জাজনক পরাজয়ের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।
গত বছর কংগ্রেসের নেতৃত্বাধীন সংযুক্ত প্রগতিশীল মোর্চাকে বিশাল হারের লজ্জায় ডুবিয়ে কেন্দ্রের ক্ষমতায় আসে বিজেপি। বলতে গেলে মোদি সরকার মধুচন্দ্রিমার সময় পার করছে। এরই মধ্যে দিল্লির বিধানসভা নির্বাচনে একটা বড় ধাক্কা খেলেন মোদি। যতটা জনপ্রিয়তা নিয়ে মোদি ক্ষমতায় এসেছেন, এর কতটা এখন আছে, তার একটা আভাস দিল্লির নির্বাচনের মধ্য দিয়ে পাওয়া যাবে বলে আগেই মত দিয়েছেন বিশ্লেষকেরা।
দিল্লির বিধানসভার গত নির্বাচনে একক বৃহত্তম দল হিসেবে এএপি কংগ্রেসের সমর্থনে সরকার গঠন করে। তবে মাত্র ৪৯ দিনের মাথায় কেজরিওয়ালের সেই সরকার পদত্যাগ করে। সেটি ভুল ছিল উল্লেখ করে এবার তিনি ভোটারদের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন। নির্বাচিত হলে এমনটা আর হবে না বলে প্রতিশ্রুতিও দিয়েছেন তিনি।

বিজ্ঞাপন
ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন