বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বৈঠক শেষে একাডেমিক কাউন্সিলের অন্যতম সদস্য মিঠুরাজ দুসিয়া বলেছেন, শুধু মহাশ্বেতা দেবী নন, দলিত লেখক বামা এবং সুকির্তারিনির লেখাও পাঠ্যসূচি থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে। এতে ক্ষুব্ধ হয়েছেন বাংলার লেখকেরা। ২০২২-২৩ শিক্ষাবর্ষ থেকে কেন্দ্রীয় সরকারের নতুন শিক্ষানীতি মেনে চলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে এসব সিদ্ধান্তের সঙ্গে সহমত হননি একাডেমিক কাউন্সিলের বেশির ভাগ সদস্য। তাঁরা এ সিদ্ধান্ত নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ তুলেছেন।

বলেছেন, কোনো রকম আলোচনা না করেই এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ভোটাভুটি করতে দেওয়া হয়নি। কাউন্সিলের ১৪ জন সদস্য মহাশ্বেতা দেবীর লেখা বাদ দেওয়া দেওয়া নিয়ে ডিসেন্ট নোট জমা দেন। তারপরও গল্পটি বাদ পড়ে।

মহাশ্বেতা দেবীর ছোটগল্প ‘দ্রৌপদী’ ১৯৯৯ সাল থেকে দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠক্রমে অন্তর্ভুক্ত ছিল।

প্রয়াত কথাসাহিত্যিক মহাশ্বেতা দেবীর জন্ম ১৯২৬ সালের ১৪ জানুয়ারি বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায়। আর মৃত্যু ২০১৬ সালের ২৮ জুলাই কলকাতায়। তিনি বিশ্বভারতী ও কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেছেন। লিখেছেন বহু গল্প, উপন্যাস। তাঁর উল্লেখযোগ্য গ্রন্থের মধ্যে রয়েছে ‘হাজার চুরাশির মা’, ‘অরণ্যের অধিকার’, ‘তিতুমীর’ উল্লেখযোগ্য। তাঁর গল্প ও উপন্যাস নিয়ে চলচ্চিত্রও নির্মিত হয়েছে।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন