বিজ্ঞাপন

পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনে গত ২৭ মার্চ থেকে ২৯ এপ্রিলের মধ্যে আট দফায় ভোট গ্রহণ করা হয়। এই নির্বাচনে নন্দীগ্রাম কেন্দ্রে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ২ হাজারের কিছু কম ভোটে বিধানসভায় বিরোধীদলীয় নেতা ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) শুভেন্দু অধিকারীর কাছে হেরে যান। এই ফলাফল চ্যালেঞ্জ করে গত জুনের মাঝামাঝি আদালতে যান মমতা। আবেদনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নন্দীগ্রামে নির্বাচনের বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন।

এই মামলা যে বিচারপতির এজলাসে ছিল, তাঁর নাম কৌশিক চন্দ। তৃণমূল কংগ্রেসের অভিযোগ, বিচারপতি চন্দের সঙ্গে রাজ্যের প্রধান বিরোধী দল বিজেপির ভালো যোগাযোগ রয়েছে। বিষয়টি তুলে ধরে কলকাতা হাইকোর্টের ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি রাজেশ বিন্দালকে চিঠিও লেখেন মমতা।

তিনি জানান, অতীতে বিজেপির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন বিচারপতি চন্দ। ‘পক্ষপাতিত্বের আশঙ্কা থেকে যাচ্ছে।’ সেই চিঠির জেরে মামলা থেকে সরে যাওয়ার আগে তৃণমূল নেত্রীকে পাঁচ লাখ রুপি জরিমানা করেন বিচারপতি চন্দ।

নতুন যে বিচারপতির এজলাসে এখন মামলাটি চলছে, তাঁর নাম শম্পা সরকার। বুধবার তিনি মামলার শুনানিতে হাজিরা দেওয়া থেকে মমতাকে অব্যাহতি দিয়েছেন। একই সঙ্গে আদালত বলেছেন, নন্দীগ্রাম কেন্দ্রে ভোট গণনা নিয়ে রাজ্যের প্রধান নির্বাচন কর্মকর্তা ও কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা রিটার্নিং কর্মকর্তাকেও প্রশ্ন করা হবে।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন