বিজ্ঞাপন

আইসিএমআর বলেছে, করোনার উপসর্গ আছে এবং করোনা রোগীর সংস্পর্শে এসেছেন—এমন ব্যক্তিরা বাসায় এই কিট ব্যবহার করে পরীক্ষা করতে পারবেন। সংস্থাটি বলেছে, এই কিট সব সময় ব্যবহার করে করোনা পরীক্ষার পরামর্শ দেওয়া হয়নি।

ভারতের মহারাষ্ট্রের পুনেভিত্তিক মাইল্যাব ডিসকভারি সলিউশন লিমিটেড এই কিট তৈরি করেছে। এই কিটের নাম কোভিসেল টিএম (প্যাথো ক্যাচ) কোভিড-১৯ ওটিসি অ্যান্টিজেন এলএফ ডিভাইস। আইসিএমআর বলেছে, এই কিটের মাধ্যমে করোনা পরীক্ষা করতে হলে মুঠোফোনের একটি অ্যাপ ব্যবহার করতে হবে। গুগল প্লে স্টোর ও অ্যাপল স্টোরে এই অ্যাপ পাওয়া যাবে। এর মাধ্যমে বিস্তারিত তথ্য জানাতে হবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে।

আইসিএমআর বলেছে, পরীক্ষায় যাঁদের করোনা শনাক্ত হবে, তাঁদের আর দ্বিতীয়বার পরীক্ষার প্রয়োজন নেই। কিন্তু যাঁদের উপসর্গ রয়েছে এবং কিট পরীক্ষায় করোনা ‘নেগেটিভ’ আসবে, তাঁদের আবারও আরটিপিসিআর পরীক্ষা করতে হবে।

ধারণা করা হচ্ছে, এই কিট বাজারে এলে ভারতে পরীক্ষাগারগুলোর ওপর চাপ কমবে। ভারতে এখন প্রতিদিন প্রায় ২০ লাখ নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় পরীক্ষা হয়েছে ২০ লাখ ৮ হাজারের বেশি নমুনা।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণে ক্ষতিগ্রস্ত দেশের তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে ভারত। করোনার সার্বক্ষণিক তথ্য সরবরাহকারী ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারসের তথ্য অনুসারে, দেশটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ২ কোটি ৫৭ লাখের বেশি মানুষ। মারা গেছেন ২ লাখ ৮৭ হাজারের বেশি। গতকাল আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৬৭ হাজারের বেশি মানুষ। মারা গেছেন সাড়ে চার হাজারের বেশি।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন