বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এদিকে আগামী মাসেই এই রাজ্যে করোনার তৃতীয় ঢেউ আসতে পারে বলে বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করেছেন। এতে রাজ্যজুড়ে কড়া সতর্ক অবস্থা জারি করা হয়েছে।

আরোপ করা হয়েছে কড়াকড়ি। চলাচলকারী মাস্কহীন মানুষকে কড়া নজরে রাখছে রাজ্যের পুলিশ। মাস্ক ছাড়া এবং করোনা বিধি না মেনে চললে পুলিশ গ্রেপ্তারও করছে।
করোনার তৃতীয় ঢেউ প্রতিরোধ করার জন্য রাজ্যের স্বাস্থ্য দপ্তর কড়া ব্যবস্থা নিয়েছে। এই রাজ্যের আংশিক লকডাউনের মেয়াদ ৩০ জুলাই পর্যন্ত বাড়িয়ে দেওয়া হলেও রাজ্য সরকার এবং সেই সঙ্গে কেন্দ্রীয় সরকার তৃতীয় ঢেউ রোখার জন্য বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে।

এদিকে করোনা পরিস্থিতি এই রাজ্যে ধীরে ধীরে নিয়ন্ত্রণের মধ্যে চলে আসায় রাজ্য সরকার গণপরিবহনব্যবস্থায় কিছুটা ছাড় দিলেও এখনো লোকাল ট্রেন চালানোর অনুমতি দেয়নি। তবে মেট্রোরেল চালানোর অনুমতি দেওয়া হয়েছে। স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় এখনো বন্ধ রাখা হয়েছে। হাটবাজার, ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান ও সরকারি-বেসরকারি অফিসকে আংশিক ছাড় দিলেও পুরোপুরি ছাড় দেওয়া হয়নি। নিয়ন্ত্রিত অবস্থায় চালানো হচ্ছে অফিস-আদালত ও ব্যাংক। তাই তৃতীয় ঢেউ রোখার জন্য রাজ্যের সর্বত্র এখন কড়াভাবে প্রচার চলছে। গোটা রাজ্যে করোনা বিধি মেনে মাস্ক পরে মানুষজনকে চলাফেরা করার অনুরোধ জানিয়ে রাজ্যজুড়ে শুরু হয়েছে প্রচার।

শনিবার রাতে পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য সরকারের স্বাস্থ্য দপ্তরের প্রকাশ করা স্বাস্থ্য বুলেটিনে বলা হয়েছে, সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় এই রাজ্যে নতুন করে সংক্রমিত হয়েছেন ৮৮২ জন।

মারা গেছেন ১০ জন। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১ হাজার ২৫ জন। মোট সুস্থ হয়েছেন ১৪ লাখ ৮৫ হাজার ১৭ জন। আর এই রাজ্যে মোট আক্রান্ত হয়েছেন ১৫ লাখ ১৬ হাজার ৪৮১ জন। এখন এই রাজ্যের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকে চিকিৎসাধীন ১৩ হাজার ৪৮৪ জন। আর এখন পর্যন্ত এই রাজ্যে করোনায় মারা গেছেন ১৭ হাজার ৯৮০ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় এই রাজ্যে করোনার নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৫৭ হাজার ৯২ জনের। আর সব মিলিয়ে এই রাজ্যে এখন পর্যন্ত করোনার নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১ কোটি ৫০ লাখ ২৯ হাজার ৮৪৬ জনের।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন