default-image

পশ্চিমবঙ্গে গতকাল সোমবার রাত পর্যন্ত সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত কোনো রোগীর মৃত্যু হয়নি। তবে এ সময়ে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছেন ১৯৮ জন। পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সোমবার রাতে তাদের নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য দিয়েছে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পশ্চিমবঙ্গে বিভিন্ন সরকারি–বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক ও বাড়িতে করোনা রোগী আছেন ৩ হাজার ২৯৩ জন। আর গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যের বিভিন্ন চিকিৎসাকেন্দ্র থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২১২ জন। পশ্চিমবঙ্গে করোনায় মৃতের সংখ্যা ১০ হাজার ২৬৮ জন (সোমবার রাত পর্যন্ত)। সব মিলিয়ে আক্রান্ত হয়েছেন ৫ লাখ ৭৫ হাজার ৩১৬ জন। তবে গত ২৪ ঘণ্টায় এ রাজ্যে করোনার নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১৬ হাজার ১৪ জনের। সব মিলিয়ে এ রাজ্যে করোনার নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৮৫ লাখ ৭৯ হাজার ২৯২ জনের। সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় সুস্থতার হার ছিল ৯৭ দশমিক ৬৪ শতাংশ। আর গত ২৪ ঘণ্টায় কলকাতায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬৪ জন।

এদিকে করোনায় মৃতের সংখ্যা কমে আসায় রাজ্যের বহু হাসপাতালে করোনা রোগীর শয্যাসংখ্যা কমিয়ে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। অনেক ক্লিনিক ও হাসপাতালে করোনা শূন্যের পর্যায়ে নেমে এসেছে।

বিজ্ঞাপন

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যমতে, পশ্চিমবঙ্গে প্রথম করোনায় আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হন গত ১৭ মার্চ। আর প্রথম করোনা রোগীর মৃত্যু হয় গত ২৩ মার্চ। এরপর গত বছরের ৩ মে থেকে প্রতিদিনই এ রাজ্যে করোনায় মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। গত অক্টোবরের মাঝামাঝিতে রাজ্যে করোনায় মৃতের সংখ্যা বাড়তে শুরু করে। তখন একটানা ৪ দিন ৬৪ জন করে করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছিল। তবে গত ৩ মের পর এবারই প্রথম এ রাজ্যে এক দিনে মৃতের সংখ্যা ছিল শূন্য।

এদিকে সোমবার থেকে পশ্চিমবঙ্গে প্রবীণদের গণটিকাদান কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এ কার্যক্রমের আওতায় টিকা দেওয়া হচ্ছে ৬০ বছরের বেশি বয়সী নাগরিকদের। এ ছাড়া ৪৫ থেকে ৫৯ বছর বয়সের মধ্যে যাঁদের অন্য রোগ বা কোমরবিডিটি রয়েছে, তাঁদেরও টিকা দেওয়া হচ্ছে। এ তালিকায় রয়েছে রাজ্যের প্রায় সাড়ে পাঁচ কোটি মানুষ। তাঁদেরই গণটিকাদান কার্যক্রমের আওতাভুক্ত করা হয়েছে।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন