default-image

পশ্চিমবঙ্গের হেমতাবাদের বিধায়ক দেবেন্দ্র নাথ রায়কে খুন করে ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ তুলেছে বিজেপির রাজ্য শাখার নেতারা। দেবেন্দ্রনাথ রায়ের হাতপা বাঁধা ঝুলন্ত দেহ বাড়ি থেকে এক কিলোমিটার দূরে একটি বন্ধ দোকানের সামনে ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া যায় আজ সোমবার। বিজেপি দাবি করেছে, মৃতদেহ পাওয়ার পর দেন্দ্রেনাথকে খুন করে তার মৃতদেহ ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে।

এই ঘটনার প্রতিবাদে কাল মঙ্গলবার উত্তরবঙ্গে ১২ ঘন্টার বনধের ডাক দিয়েছে বিজেপি। বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ এই বনধের ডাক দেন। তিনি আরও , বলেছেন আগামী বুধবার রাজ্যের সমস্ত থানায় শাসকদলের গুন্ডাবাজি ও হত্যালীলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ দেখাবে।

মৃত বিধায়কের স্ত্রী চাঁদিমা রায় বলেছেন, রোববার গভীররাতে বিধায়ককে কেউ এসে ডেকে মোটর সাইকেলে করে নিয়ে যায়। এরপর আজ মেলে তাঁর হাতপা বাঁধা অবস্থায় ঝুলন্ত মৃতদেহ বাড়ি থেকে এক কিলোমিটার দূরে একটি বন্ধ দোকানের বারান্দায়। তিনি প্রশ্ন তোলেন, আত্মহত্যা করলে কি হাত পা বাঁধা থাকে?
পুৃলিশ সুপার অবশ্য বলেছেন, প্রাথমিকভাবে মনে করা হচ্ছে এটি আত্মহত্যা হতে পারে। মৃতের পকেটে এতটি সুইসাই্ড নোট পাওয়া গেছে। সেখানে তিনি ঘটনার সঙ্গে কারা জড়িত তার নাম লিখে গেছেন। তবে পুলিশ সুপার তদন্তের স্বার্থে তা প্রকাশ করেননি। রাজ্য সরকার ঘটনার তদন্তের ভার দিয়েছে সিআইডির হাতে।

এই ঘটনার পর তৃণমূল নেতা ও রাজ্যের পৌরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম বলেছেন, পাগলে কিনা বলে, ছাগলে কিনা খায়? ওরা এখন হতাশায় ভুগে লাশের রাজনীতি করছে। পুলিশ তদন্ত করছে।

অন্যদিকে বিজেপির কেন্দ্রীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা এই খবর পেয়ে এক ট্যুইট বার্তায় বলেছেন, এট ঘটনা মুখ্যমন্ত্রী মমতার পশ্চিমবঙ্গে গুন্ডারাজ কায়েম ও আইনশৃংখলা ব্যর্থতার কথা প্রমাণ করছে। সিপিএম নেতা ও সাবেক সাংসদ মহম্মদ সেলিম এই ঘটনার পূর্ণ তদন্তের দাবি করেছেন।

এদিকে এই ঘটনার পর বিজেপি আজ কলকাতায় এক মৌন মিছিল বের করে। তারা এই হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িতদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার করে আইনানুগ শাস্তি দেওয়ার দাবি তোলে । বিজেপির রাজ্য নেতৃবৃন্দ আজ সোমবার বিকেলে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের সঙ্গে রাজভবনে গিয়ে দেখা করে এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত এবং বিচার দাবি করেছে।

বিজ্ঞাপন
ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন