default-image

ভারতের পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনের অষ্টম বা শেষ দফার ভোট গ্রহণ আগামীকাল অনুষ্ঠিত হবে। এদিন ৪ জেলার ৩৫টি আসনে ভোট হবে। ২৯৪ আসনের এই বিধানসভার নির্বাচনের প্রথম দফা শুরু হয়েছিল ২৭ মার্চ। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সংশ্লিষ্ট জেলাগুলোতে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।

আগামীকাল যে ৪ জেলায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে সেগুলো হলো বীরভূম, মালদা, মুর্শিদাবাদ ও উত্তর কলকাতা। এর মধ্যে মুর্শিদাবাদ ও বীরভূমের রয়েছে ১১টি করে আসন। মালদায় রয়েছে ৬টি আসন এবং উত্তর কলকাতায় রয়েছে ৭টি আসন।
ভোট গ্রহণ শান্তিপূর্ণ করাতে নির্বাচন কমিশন সার্বিক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।

এই চার জেলার মধ্যে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ হলো বীরভূম। এই জেলায় অতীতে পঞ্চায়েত, পৌরসভাসহ বিভিন্ন নির্বাচনে মানুষের নির্বিঘ্নে ভোট দিতে না পারার অভিযোগ রয়েছে। গত জেলা পরিষদ নির্বাচনে সব আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জিতিয়ে নেওয়া হয়েছিল তৃণমূলের প্রার্থীদের। অভিযোগ রয়েছে, এই অনিয়মের প্রধান কারিগর ছিলেন বীরভূমের তৃণমূল জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। বেফাঁস মন্তব্যের জন্য রাজনীতিতে এখনো অনুব্রতের নাম উচ্চারিত হয় মানুষের মুখে মুখে।

বিজ্ঞাপন

তাই শেষ দফায় বীরভূমের ১১টি আসনে অবাধ নির্বাচন করতে নির্বাচন কমিশন নিরাপত্তায় কমতি রাখতে চাইছে না। গতকাল মঙ্গলবার বিকেল ৫টা থেকে আগামী শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত অনুব্রত মণ্ডলকে নজরবন্দীর মধ্যে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে নিরাপত্তা বাহিনী। তাই কোথাও বের হতে গেলেও তাঁর পেছনে থাকছে পুলিশ, কেন্দ্রীয় বাহিনীর সদস্য ও ম্যাজিস্ট্রেট।

বীরভূমে রয়েছে ৩ হাজার ৯০৮টি ভোটকেন্দ্র। এর মধ্যে ১ হাজার ১৭৫টি ভোটকেন্দ্রকে অতিস্পর্শকাতর ভোটকেন্দ্র হিসেবে চিহ্নিত করেছে নির্বাচন কমিশন। আর এই বীরভূমের নির্বাচনকে সুষ্ঠু ও অবাধ করতে নিয়োগ করা হয়েছে ২২৪ কোম্পানির কেন্দ্রীয় বাহিনী। প্রস্তুত রাখা হয়েছে নিরাপত্তা বাহিনীর ২১৯টি জরুরি সাড়াদানকারী দল। জেলায় নিয়োগ করা হয়েছে অতিরিক্ত ১১ জন ম্যাজিস্ট্রেট। নির্বাচন-পরবর্তী অশান্তি রুখতে আগামী শুক্রবার পর্যন্ত সতর্ক অবস্থানে থাকবেন পুলিশের কর্মকর্তারা।

ইতিমধ্যে বীরভূমে নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গের জন্য নির্বাচন কমিশন অনুব্রত মণ্ডলের বিরুদ্ধে শোকজ করেছে। তবুও অনুব্রত এতটুকু দমছেন না। তিনি বলছেন, ‘কাল খেলা হবে বীরভূমে। আর সেই সেই খেলায় জিতবে তৃণমূলই।’

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন