default-image

করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের ভারত সফর বাতিল করা হয়েছে। আজ সোমবার ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়েছে। ২৬ এপ্রিল তিন দিনের সফরে বরিস জনসনের নয়াদিল্লি আসার কথা ছিল। খবর এনডিটিভির।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ভারতে করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে উভয় দেশের পারস্পারিক সমঝোতার ভিত্তিতে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের সফর বাতিলের সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এ বিষয়ে ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র অরিন্দম বাগচি এনডিটিভিকে বলেন, সফর বাতিল করলেও আগামীতে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে ভার্চ্যুয়ালি বৈঠক করবেন। ভবিষ্যতে ভারত ও যুক্তরাজ্যের মধ্যকার সহযোগিতামূলক সম্পর্কের রূপরেখা নিয়ে আলোচনা করবেন তাঁরা।

এর আগে গত জানুয়ারিতে ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসের আয়োজনে অংশ নিতে বরিস জনসনের নয়াদিল্লি আসার কথা ছিল। ওই সময় করোনা সংক্রমণের কারণে বরিসের সফর সাময়িক স্থগিত করে এপ্রিলে নিয়ে আসা হয়েছিল। একই কারণে এবার ভারত সফর বাতিল করলেন তিনি। তবে তাঁর এ সফর নিয়ে তিনি নিজ দেশে বিরোধী লেপার পার্টির বেশ তোপের মুখে পড়েছিলেন। কেন করোনার মধ্যে তিনি মোদির সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বিষয় নিয়ে অনলাইনে মিটিং করছেন না, তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। ২০১৯ সালে যুক্তরাজ্যের সাধারণ নির্বাচনের পর ইউরোপের বাইরে এটাই বরিস জনসনের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ দ্বিপক্ষীয় সফর হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছিল।

বিজ্ঞাপন

এদিকে ভারতে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের নতুন রেকর্ড হয়েছে। দেশটিতে ১ দিনে ২ লাখ ৭৩ হাজার ৮১০ জন করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন বলে জানিয়েছে ভারতের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। কোভিডে আক্রান্ত হয়ে দেশটিতে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ১ হাজার ৬১৯ জনের।

এর মধ্য দিয়ে ভারতে করোনায় সংক্রমণের সংখ্যা ১ কোটি ৫০ লাখ ৬৫ হাজার ছাড়িয়েছে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের জনস হপকিনস ইউনিভার্সিটি। মারা গেছেন ১ লাখ ৭৮ হাজার ৫০০ জনের বেশি মানুষ। সংক্রমণ শনাক্তে বিশ্বে যুক্তরাষ্ট্রের পর ভারতের অবস্থান দ্বিতীয় শীর্ষে। মৃত্যুতে চতুর্থ শীর্ষে।

সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ের ধাক্কায় বর্তমানে মহারাষ্ট্র, দিল্লি, উত্তর প্রদেশ, কেরালা, কর্ণাটকসহ ভারতের ১০টি রাজ্যে করোনা পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে দিল্লিতে আজ রাত ১০টা থেকে লকডাউন শুরু হচ্ছে। চলবে পরবর্তী সোমবার ভোর পাঁচটা পর্যন্ত। মুম্বাইসহ কয়েকটি শহরে আগে থেকেই চলছে রাত্রিকালীন কারফিউ।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন