বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তেলেঙ্গানা রাজ্যের ধানচাষিদের পক্ষে গত বৃহস্পতিবার হায়দরাবাদে ধরনায় অংশ নেন চন্দ্রশেখর রাও। সেখানে তিনি ঘোষণা দেন কৃষক ইস্যুতে জাতীয় পর্যায়ে নেতৃত্ব দিতে পিছপা হবেন না। সবকিছুর আগে দেশের কৃষকদের আত্মনির্ভর করে তোলার দাবি করেন তিনি। সেদিনের সেই প্রতিশ্রুতির ধারাবাহিকতায় তিনি নিহত কৃষকদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেওয়ার ঘোষণা দেন।
বছর দেড়েক আগে করোনা পরিস্থিতির মধ্যে তিনটি কৃষি আইন প্রণয়নে কেন্দ্রীয় সরকার অধ্যাদেশ জারি করে। তারপর গত বছরের সেপ্টেম্বরে পার্লামেন্টের খণ্ডকালীন অধিবেশনে প্রায় বিনা আলোচনায় বিরোধীদের দাবি উপেক্ষা করে তিনটি আইন পাস করানো হয়।

আইনগুলোর মধ্যে প্রথমটি ‘অত্যাবশ্যক পণ্য (সংশোধনী) আইন’ বা ‘দ্য এসেনশিয়াল কমোডিটিজ (অ্যামেন্ডমেন্ট) অ্যাক্ট’। দ্বিতীয়টি ‘কৃষিপণ্য লেনদেন ও বাণিজ্য উন্নয়ন আইন’ বা ‘ফারমার্স প্রডিউস ট্রেড অ্যান্ড কমার্স (প্রমোশন অ্যান্ড ফ্যাসিলিয়েশন) অ্যাক্ট’। তৃতীয়টি ‘কৃষক সুরক্ষা ও ক্ষমতায়ন (মূল্য এবং কৃষি পরিষেবাসংক্রান্ত) আইন’ বা ‘ফারমার্স (এমপাওয়ারমেন্ট অ্যান্ড প্রোটেকশন) অ্যাগ্রিমেন্ট অন প্রাইস অ্যান্ড ফার্ম সার্ভিসেস অ্যাক্ট’।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন