বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পশ্চিমবঙ্গে এবারের বিধানসভা নির্বাচনে মমতা লড়েছিলেন পূর্ব মেদিনীপুরের নন্দীগ্রাম থেকে। কিন্তু ওই আসনে তিনি বিজেপির প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারীর কাছে ১ হাজার ৯৫৬ ভোটের ব্যবধানে হেরে যান। এরপরও মমতাকে মুখ্যমন্ত্রীর পদে বসায় তৃণমূল। ভারতের সংবিধানে বলা হয়েছে, পরাজিত প্রার্থীর মুখ্যমন্ত্রী হতে বাধা নেই। তবে শপথ নেওয়ার পরবর্তী ছয় মাসের মধ্যে তাঁকে সংশ্লিষ্ট রাজ্যের অন্য কোনো আসন থেকে উপনির্বাচনে জয় পেতে হবে। এ সুযোগ কাজে লাগায় তৃণমূল।

নন্দীগ্রামে পরাজিত মমতা উপনির্বাচনে জয় পেতে তাঁর পুরোনো আসন ভবানীপুরকে বেছে নেন। এবারের বিধানসভা নির্বাচনে ভবানীপুর থেকে জয়ী হয়েছিলেন তৃণমূল নেতা ও পশ্চিমবঙ্গের কৃষিমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়। তিনি বিধায়ক পদ ছেড়ে দেন। এরপর উপনির্বাচনে প্রার্থী হন মমতা। গত ৩০ সেপ্টেম্বর এ আসনে ভোট হয়। ফল ঘোষণা হয় ৩ অক্টোবর। এ আসনে বিজেপি প্রার্থী প্রিয়াংকা টিবরেওয়ালকে ৫৮ হাজার ৮৩২ ভোটের ব্যবধানে হারিয়ে বিধায়ক নির্বাচিত হন মমতা। এতে তাঁর মুখ্যমন্ত্রীর পদ সুরক্ষিত হয়।

এর আগে ২০১১ ও ২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনে ভবানীপুর থেকেই বিজয়ী হয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ২০১৬ সালে এ আসনে মমতা জিতেছিলেন ২৫ হাজার ৩৪১ ভোটের ব্যবধানে। আর ২০১১ সালে ভবানীপুরে ৫৪ হাজার ২১৩ ভোটের ব্যবধানে মমতা বিজয়ী হয়েছিলেন। এবার আগের সব রেকর্ড ভাঙেন মমতা।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন