default-image

ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লিতে আজ মঙ্গলবার কৃষকদের ট্রাক্টরমিছিলের কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। কৃষকেরা পুলিশি প্রতিবন্ধকতা ভেঙেছেন। কৃষকদের লাঠিপেটা করেছে পুলিশ। ছুড়েছে কাঁদানে গ্যাসের শেল। এনডিটিভি অনলাইনের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

বিতর্কিত তিন কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে ভারতের প্রজাতন্ত্র দিবসে (২৬ জানুয়ারি) রাজধানী নয়াদিল্লির রাজপথে ট্রাক্টরমিছিল করার পূর্বঘোষণা দেন দেশটির আন্দোলনরত কৃষকেরা। এ কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে রাজধানীর সীমান্তসহ বিভিন্ন স্থানে বিপুলসংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়।

রাজপথে প্রজাতন্ত্র দিবসের প্যারেড শেষে কৃষকদের ট্রাক্টরমিছিল বের করার অনুমতি দেয় দিল্লি পুলিশ। আজ প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠান শুরুর আগেই সকাল আটটার দিকে নয়াদিল্লিতে ঢোকার সীমান্তগুলোয় জড়ো হন হাজারো কৃষক।

অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে সিংঘু ও তিকরি সীমান্তে। সেখানে কৃষকেরা পুলিশি বাধা উপেক্ষা করেন। তাঁরা ব্যারিকেড ভেঙে রাজধানীর ভেতরে ঢুকে পড়েন। একপর্যায়ে পুলিশ কৃষকদের লাঠিপেটা করে। কৃষকদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ কাঁদানে গ্যাসের শেল ছোড়ে। পুলিশকে লক্ষ্য করে কৃষকেরাও ইটপাটকেল ছোড়েন। দুই পক্ষের মধ্যে পাল্টাপাল্টি ধাওয়ার ঘটনাও ঘটে।

বিজ্ঞাপন
default-image

ছবি ও ভিডিওতে দেখা যায় হাজারো কৃষক। তাঁদের হাতে পতাকা। অনেক কৃষক হেঁটে রাজধানীর দিকে অগ্রসর হচ্ছেন। অনেকে পুলিশি ব্যারিকেড ভাঙছেন। কেউ কেউ ট্রাক্টর নিয়ে ঢুকে পড়ছেন। কৃষকেরা বাধা উপেক্ষা করলে পুলিশ মারমুখী হয়ে ওঠে। কৃষকেরাও পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ান।

এনডিটিভি জানায়, এই অপ্রীতিকর ঘটনায় পুলিশসহ বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন।

কৃষক সংগঠকেরা আগেই ঘোষণা দেন, ২৬ জানুয়ারি তাঁরা নয়াদিল্লির রাজপথে ৫০ থেকে ৬০ হাজার ট্রাক্টর নামাবেন। একই সঙ্গে দেশের প্রায় ২০০ জেলায় তাঁরা ট্রাক্টর মিছিল বরে করবেন।

বিতর্কিত কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে দেশটির ৪০০টির বেশি কৃষক সংগঠন কয়েক মাস ধরে আন্দোলন করছে।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন