বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এদিকে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র অরিন্দম বাগচী গতকাল জানান, অস্ট্রেলিয়া ছাড়াও আরও পাঁচটি দেশ কোভ্যাক্সিনকে মান্যতা দিয়েছে। দেশ পাঁচটি হচ্ছে এস্তোনিয়া, কিরগিজস্তান, ফিলিস্তিন, মরিশাস ও মঙ্গোলিয়া।

অস্ট্রেলিয়ার সরকারি বিবৃতিতে বলা হয়, এশিয়ার বহু দেশের নাগরিক এই টিকাগুলো নিয়েছেন। এই মান্যতার ফলে বিদেশি বহু ছাত্রছাত্রী ও দক্ষ–অদক্ষ শ্রমিক–কর্মী অস্ট্রেলিয়ায় যেতে পারবেন। এই দুই টিকা সম্পর্কে টিজিএ সম্প্রতি বহু তথ্য পেয়েছে। তাতে স্পষ্ট, এই টিকা সংক্রমণ এড়াতে বা তার প্রভাব কমাতে সক্ষম। এই দুই টিকার পূর্ণ ডোজপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা অস্ট্রেলিয়ায় প্রবেশ করলে তাঁদের কাছ থেকে সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা অনেক কম থাকবে।

অস্ট্রেলিয়া এর আগে স্বীকৃতি দিয়েছিল ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটের তৈরি ‘কোভিশিল্ড’ ও চীনের ‘সিনোভ্যাক–করোনাভ্যাক’ টিকাকে। এখন অন্য দুই টিকাকেও স্বীকৃতি দেওয়ার ফলে ভারতসহ দক্ষিণ এশিয়ার বহু দেশের নাগরিকের অস্ট্রেলিয়ায় যেতে ও বসবাস করতে অসুবিধা হবে না।

কোভ্যাক্সিন এখনো বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ছাড়পত্র পায়নি। তবে শিগগির তা মিলবে বলে ভারত বায়োটেক আশা করছে। গত ২৫ অক্টোবর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছিল, তারা কোভ্যাক্সিন–সংক্রান্ত কিছু অতিরিক্ত তথ্য ভারত বায়োটেকের কাছ থেকে জানতে চেয়েছে।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন