বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও একই কথা বলেছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার রাজ্য সচিবালয় নবান্নে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, বিধিনিষেধ আরোপের পর রাজ্যবাসী সুফল পেতে শুরু করেছে। কমছে সংক্রমণের হার, বাড়ছে সুস্থতার হার। তবে এখনো করোনার মৃত্যুহারে রাস টানা সম্ভব হয়নি। তিনি আরও বলেন, করোনার রাস টানতে এই রাজ্যে বিধিনিষেধ বা লকডাউনের মেয়াদ আরও ১৫ দিন বাড়িয়ে ১৫ জুন পর্যন্ত করা হলো।

পশ্চিমবঙ্গ সরকার করোনার রাশ টানতে ১ মে থেকে আংশিক লকডাউনের ঘোষণা দেয়। এরপর ১৫ মে থেকে দেওয়া লকডাউনে আরোপ করা হয় আরও কড়াকড়ি বিধি। এরপর গতকাল তা আরও ১৫ দিন বাড়ানো হলো।

এদিকে গতকাল রাতে রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তরের বুলেটিনে বলা হয়েছে, নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ১৩ হাজার ৪৬ জন। আর গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১৯ হাজার ১২১ জন। তবে মারা গেছেন ১৪৮ জন। আর সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় করোনার নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৫৭ হাজার ১৬৫ জনের। আর টিকা দেওয়া হয়েছে ৬৮ হাজার ১৯ জনকে। সংক্রমিত হয়েছেন ১৩ লাখ ৩১ হাজার ২৪৯ জন। করোনামুক্ত হয়েছেন ১১ লাখ ৯৯ হাজার ১২০ জন।

রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তরের বুলেটিনে বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় কলকাতায় করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ১ হাজার ৪৮৯ জন। মারা গেছেন ৩২ জন। উত্তর চব্বিশ পরগনায় সংক্রমিত হয়েছেন ২ হাজার ৯৭৫ জন। আর মারা গেছেন ৪২ জন। সব মিলে এখন পর্যন্ত এই রাজ্যে করোনায় মারা গেছেন ১৪ হাজার ৯৭৫ জন। কলকাতাসহ রাজ্যের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ১ লাখ ১৭ হাজার ১৫৪ করোনা রোগী।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন