বিজ্ঞাপন

ভারতে তৃতীয় টিকা হিসেবে গত মাসে স্পুতনিক ভির জরুরি ব্যবহারের অনুমোদন দেওয়া হয়। তবে রাশিয়ার এই টিকা এখনো বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অনুমোদন পায়নি।

এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়, মডার্না ও ফাইজারের পর স্পুতনিক ভির কার্যকারিতা সবচেয়ে বেশি, ৯১ দশমিক ৬ শতাংশ। বৃহস্পতিবারই ভারতে এই টিকার প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে হায়দরাবাদে।

আমদানি করা স্পুতনিক ভির প্রতি ডোজের এই দামের মধ্যে ৫ শতাংশ করও রয়েছে। ভারতে উৎপাদন হলে এই টিকার দাম কিছুটা কম হবে ধারণা করা হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার বলেছে, আগামী সপ্তাহ থেকেই রাশিয়ার টিকা বাজারে পাওয়া যাবে। ১ মে এই টিকার প্রথম চালান ভারতে পৌঁছায়। ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে টিকার ঘাটতি রয়েছে এবং টিকাদানে বয়সের সীমা বেঁধে দেওয়া হয়েছে।

ডক্টর রেড্ডি’জ ল্যাবরেটরিজ বলেছে, আগামী মাসগুলোতে টিকার আরও চালান আসবে। পাশাপাশি ভারতেও এর উৎপাদন হবে।

স্পুতনিক ভি টিকা তরল ও গুঁড়া দুভাবেই পাওয়া যায়। তরলটি হিমাঙ্কের নিচে ২৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় সংরক্ষণ করতে হয়। আর গুঁড়া ২ থেকে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় রাখা যায়।

ভারতে এই টিকার ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল এবং বিতরণের স্বত্ব পেতে গত সেপ্টেম্বরে রাশিয়ান ডাইরেক্ট ইনভেস্টমেন্ট ফান্ডের (আরডিআইএফ) সঙ্গে চুক্তি করে ডক্টর রেড্ডি’জ ল্যাবরেটরিজ।

রাশিয়ার বাইরে আরও অনেক দেশে স্পুতনিক ভি টিকা দেওয়া হচ্ছে। এর মধ্যে ২০ লাখ মানুষকে এই টিকা দেওয়া হয়েছে।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন