default-image

ভারতে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের দৈনিক শনাক্তে রেকর্ড হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ১ লাখ ১৫ হাজারের বেশি নতুন সংক্রমিত রোগী শনাক্ত হয়েছেন। ভারতে করোনা মহামারি শুরুর পর এক দিনে এত রোগী আগে কখনো শনাক্ত হয়নি।

সরকারি তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় ১ লাখ ১৫ হাজার ৭৩৬ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছেন। একই সময় করোনায় দেশটিতে মারা গেছেন ৬৩০ জন।

ভারতে এখন পর্যন্ত ১ কোটি ২৮ লাখ ১ হাজার ৭৮৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। দেশটিতে করোনায় মোট মারা গেছেন ১ লাখ ৬৬ হাজার ১৭৭ জন।

করোনায় বিশ্বে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশের তালিকায় ভারতের অবস্থান তৃতীয়। সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ যুক্তরাষ্ট্র। ব্রাজিল দ্বিতীয়।

ভারতে এখন করোনার দ্বিতীয় ঢেউ চলছে। এই ঢেউয়েই করোনা শনাক্তের সংখ্যায় আগের সব রেকর্ড ভেঙে গেল।

গত রোববার থেকে সোমবার পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছিল ১ লাখ ৩ হাজার ৫৫৮ জন। এক বছরের মধ্যে এক দিনে রোগী শনাক্তের ক্ষেত্রে এটা ছিল একটা রেকর্ড। আজ সেই রেকর্ডও টপকে গেল। তার আগে গত বছরের ১৭ সেপ্টেম্বর ভারতে সর্বোচ্চ ৯৭ হাজার ৮৯৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল।

বিজ্ঞাপন

ভারতে করোনা মোকাবিলায় টিকাদান কার্যক্রম জোরদার করা হয়েছে। তা সত্ত্বেও দেশটিতে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে সংক্রমণ শনাক্তের নতুন নতুন রেকর্ড হচ্ছে। দেশটির সরকার সতর্ক করে বলেছে, ভারতে করোনা সংক্রমণের ক্ষেত্রে আগামী চার সপ্তাহ হবে খুবই আশঙ্কাজনক সময়।

ভারতে করোনার সংক্রমণের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বাজে অবস্থা মহারাষ্ট্রের। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যটিতে ৫৫ হাজারের বেশি নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে। কেরালা, কর্ণাটক, অন্ধ্র প্রদেশ, তামিলনাড়ুর অবস্থাও খারাপ।

এ ছাড়া ছত্তিশগড়, উত্তর প্রদেশ, পাঞ্জাব, গুজরাট প্রভৃতি রাজ্যে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ বিপজ্জনক হয়ে উঠেছে।

রাজধানী দিল্লির করোনা পরিস্থিতিও অবনতিশীল। দিল্লিতে গত ২৪ ঘণ্টায় ৫ হাজার ১০০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ বছরের মধ্যে এক দিনে এই সংখ্যা সর্বোচ্চ। পরিস্থিতি সামাল দিতে নয়াদিল্লিতে মঙ্গলবার থেকে রাত্রিকালীন কারফিউ জারি করা হয়েছে। প্রতিদিন রাত ১০টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত এই কারফিউ চলবে। আগামী ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত এই কারফিউ বলবৎ থাকবে।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন