বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ভারতে প্রায় সব রাজ্যে করোনাভাইরাসের অতি সংক্রামক ধরন অমিক্রন শনাক্ত হয়েছে। দেশটিতে এখন অমিক্রন আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা ৪ হাজার ৮৬৮। করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত রাজ্য মহারাষ্ট্রে সর্বোচ্চ ১ হাজার ২৮১ জনের অমিক্রন শনাক্ত হয়েছে। এ ছাড়া ৬৪৫ জনের অমিক্রন নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে রাজস্থান।

জানুয়ারিতে ভারতে করোনার গণটিকাদান কর্মসূচি শুরু হয়। দেশটিতে ১৫৩ কোটির বেশি ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে। এটাকে মাইলফলক বলছে এনডিটিভি।

করোনা মহামারির এই তৃতীয় ঢেউয়ে ভারতের ২৯টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের অন্তত ১২০টি জেলায় গত এক সপ্তাহে করোনা শনাক্তের হার ১০ শতাংশ। করোনায় গুরুতর অসুস্থতা ঠেকাতে গত সোমবার থেকে ভারতে স্বাস্থ্যকর্মী ও ঝুঁকিতে থাকা প্রবীণ ব্যক্তিদের করোনা টিকার বুস্টার ডোজ দেওয়া শুরু হয়েছে।

নতুন করে শুরু হওয়া করোনাভাইরাসের প্রকোপ ঠেকাতে ভারতের একাধিক রাজ্যে রাতে কারফিউ জারি করা হয়েছে। শুধু সাপ্তাহিক ছুটির দিনগুলোয় আবার বিধিনিষেধ আরোপ করেছে দিল্লি। এ ছাড়া বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, রেস্তোরাঁ ও পানশালা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

করোনার ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণ ঠেকাতে সোমবার ভারতের কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী মানসুখ মান্ডাভিয়া সব রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলকে কোভিড মোকাবিলার লড়াইয়ে প্রস্তুতিতে যেন কোনো ঘাটতি না থাকে, তা নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়েছেন। মহামারি ব্যবস্থাপনায় সামগ্রিক সমন্বয় বজায় রাখার ওপর জোর দিয়েছেন তিনি।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন