default-image

ভারতে ২৪ ঘণ্টায় ৪৩ লাখের বেশি মানুষ করোনার টিকা নিয়েছেন। আজ মঙ্গলবার দেশটির কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে এই তথ্য জানিয়েছে। দেশটিতে কোভিড–১৯ টিকাদান কর্মসূচি শুরুর পর এক দিনে এটাই সবচেয়ে বেশি মানুষের টিকা নেওয়ার ঘটনা।

গতকাল সোমবার ছিল ভারতে করোনার টিকা প্রদানের ৮০তম দিন। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এই দিন দেশটিতে ৪৩ লাখ ৯৬৬ জন করোনার টিকা নিয়েছেন। তাঁদের মধ্যে টিকার প্রথম ডোজ নিয়েছেন ৩৯ লাখ ৫০৫ জন। দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ৪ লাখ ৪৬১ জন।

সংবাদ সংস্থা এএনআই জানিয়েছে, ২৪ ঘণ্টায় ৪৩ লাখের বেশি মানুষকে করোনার টিকা দেওয়ার ঘটনাকে ‘যুগান্তকারী অর্জন’ বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। এর মধ্য দিয়ে ভারতে করোনার টিকাগ্রহীতার সংখ্যা ৮ কোটি ৩১ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। এর মধ্যে ৭ কোটি ২২ লাখের বেশি ভারতীয় টিকার প্রথম ডোজ নিয়েছেন। ভারতে ৪৫ বছর ও তার বেশি বয়সের মানুষকে করোনার টিকা দেওয়া হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

দেশটির সরকারি হিসাব অনুযায়ী, এখন পর্যন্ত ভারতে ২৫ কোটির বেশি মানুষের করোনা পরীক্ষা করা হয়েছে। শনাক্ত হয়েছে ১ কোটি ২৭ লাখ করোনা সংক্রমিত রোগী। মৃতের সংখ্যা ১ লাখ ৬৫ হাজারের বেশি। এর মধ্যে গত এক সপ্তাহে দেশটিতে ৫ লাখ ৪৯ হাজার করোনা রোগী শনাক্ত করা হয়েছে।

করোনা সংক্রমণ শনাক্তে যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রাজিলের পর ভারতের অবস্থান তৃতীয়। দেশটিতে এখন প্রতিদিনই হু হু করে নতুন রোগী শনাক্তের সংখ্যা বাড়ছে। সেই সঙ্গে বাড়ছে মৃত্যুও। করোনার প্রথম ঢেউয়ে দৈনিক সংক্রমণ এক লাখ কখনো হয়নি। অথচ দ্বিতীয় ঢেউয়ে গত সোমবার তা এক লাখ ছাড়িয়েছে।

চিন্তার বিষয় হলো, সংক্রমণের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃত্যুও। পরিস্থিতি সামাল দিতে কেন্দ্রীয় সরকার ২৪ ঘণ্টা টিকাদান কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। সরকারি ও বেসরকারি স্তরে টিকাকেন্দ্রের সংখ্যাও বাড়ানো হয়েছে। তবে ২৪ ঘণ্টা টিকাদান কর্মসূচি সর্বত্র সম্ভব হবে কি না, তা নিয়ে সংশয় রয়ে গেছে। কেননা, সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় মুম্বাই, পুনেসহ মহারাষ্ট্রের একাধিক শহর ও রাজধানী দিল্লিতে রাতের বেলা কারফিউ জারি করা হয়েছে।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন