বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এদিকে টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে বলা হয়েছে, যাঁকে আটক করা হয়েছে, তাঁকে এখনো গ্রেপ্তার দেখানো হয়নি। মুম্বাইয়ে এনে তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। ওই শিক্ষার্থীর বাবা সরকারি চাকরি করেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এদিকে মুম্বাই ও দিল্লির থানা-পুলিশে প্রাথমিক অভিযোগের পর কেন্দ্রীয় সরকারের ইলেকট্রনিক ও তথ্যপ্রযুক্তি–বিষয়ক মন্ত্রী অশ্বিনী বিষ্ণু এক টুইট বার্তায় গত রোববার লিখেছেন, দিল্লি ও মুম্বাইয়ের পুলিশের সঙ্গে কাজ করছে কেন্দ্রীয় সরকার।

এর আগে কাতারভিত্তিক গণমাধ্যম আল-জাজিরার খবরে বলা হয়েছিল, নিলামে বিক্রির জন্য যে অ্যাপ ব্যবহার করা হয়েছিল, সেটির নাম ‘বুল্লি বাই’। ভারতের শতাধিক নারীর ছবি আপলোড করা হয়েছিল ওই অ্যাপে। এসব নারীর মধ্যে বলিউডের অভিনেত্রী শাবানা আজমিও রয়েছেন। এ ছাড়া রয়েছেন সাংবাদিক, অধিকারকর্মী ও রাজনীতিবিদ। এই নারীদের সবাই মুসলিম।

গত বছরের জুলাইয়ে এমন একটি ঘটনা ঘটেছিল। সে সময় যে অ্যাপের মাধ্যমে এই বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছিল, তার নাম ‘সুল্লি ডিলস’। ওই অ্যাপের মাধ্যমে বিক্রির জন্য নাম উঠেছিল প্রায় ৮০ মুসলিম নারীর। এই ‘বুল্লি’ কিংবা ‘সুল্লি’—দুটি শব্দই ব্যবহার করা হয় নারীদের অপমান করার জন্য।

গত শনিবার ‘বুল্লি বাই’ অ্যাপটি নামিয়ে নেওয়া হয়। ধারণা করা হচ্ছে, ‘সুল্লি ডিলস’ ক্লোন করে এটি তৈরি করা হয়েছে।

ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন