default-image

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে আজ ভোট গ্রহণের সময় কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে চারজন নিহত হওয়ার ঘটনায় রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দায়ী করেছেন
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তিনি বলেছেন, মমতা তাঁর কর্মীদের কেন্দ্রীয় বাহিনীকে ঘিরে ফেলার ট্রেনিং দিচ্ছেন। মমতার উসকানিতেই আজকের প্রাণহানি।  

আজ শনিবার পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনের চতুর্থ দফার ভোট গ্রহণ চলছে। রাজ্যের কোচবিহারের শীতলকুচি এলাকায় আজ ভোট কেন্দ্রে সহিংসতার সময় কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে চারজন নিহত হন। এর আগে এখানেই এক ভোটার প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত হন। নিহত ব্যক্তিকে তাঁদের সমর্থক বলে দাবি করে বিজেপি। তারা এ হামলার জন্য তৃণমূলকে দায়ী করে। যদিও তৃণমূল এ অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

এই চতুর্থ দফা ভোটের সময় আজ শিলিগুড়িতে জনসভায় যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী মোদি। তিনি সভায় শীতলকুচির ঘটনার জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উসকানিকে দায়ী করেন। মোদি বলেন,  এবার দিদির দল ছাপ্পা ভোট দিতে পারছে না। আর সেজন্য দিদি খেপে গেছেন। দোষারোপ করছেন কেন্দ্রীয় বাহিনীকে।

বিজ্ঞাপন

মোদি প্রশ্ন করেন, একজন মুখ্যমন্ত্রী হয়ে দিদি কিভাবে কেন্দ্রীয় বাহিনীকে ঘেরাও করার নিদান দিতে পারেন? কিভাবে কেন্দ্রীয় বাহিনীকে পেটানোর নিদান দিতে পারেন ?
বৃহস্পতিবার এক নির্বাচনী সভায় কেন্দ্রীয় বাহিনীর তীব্র সমালোচনা করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এ বাহিনী বিজেপির হয়ে কাজ করছে এবং ভোট দিতে বাধা দিচ্ছে বলেও মমতা অভিযোাগ করেন। ভোট দিতে বাধা দিলে কেন্দ্রীয় বাহিনীকে ঘিরে ফেলার নির্দেশ দেন মমতা।

আজ দুপুরে শিলিগুড়িতে আয়োজিত এই জনসমাবেশে মোদি বলেন, এবার বিদায় নেওয়ার সময় হয়েছে দিদির সরকারের। বড় ব্যবধানে জিততে চলেছে বিজেপি। রাজ্যের সব মানুষই এখন বিজেপির আগামির সরকারকে আশীর্বাদ করছে। বলছে, এবার তৃণমূল যাচ্ছে, বিজেপি আসছে। তাইতো আজ বাংলার প্রতিটি কোণে কোণে আজ পরিবর্তনের হাওয়া, সেই সঙ্গে আগামি ভবিষ্যতের দিকে চেয়ে উচ্ছাস।

মোদি মমতার উদ্দেশ্যে বলেন, বিজেপি দুর্নীতিবাজ কাউকে ছাড়বেনা। বিচার করবে। এই বাংলায় হিংসা করে কেউ বাঁচতে পারবেনা। মোদি বলেন, এই বাংলার মানুষ বাংলায়ই থাকবেন। বাংলা কারও জায়গিরদারী নয়। সবার সমান অধিকার। তাই বলছি দিদি , আর দুর্নীতিবাজদের , অভিযুক্তদের বাঁচাতে পারবেননা। কারণ বাংলার মানুষ আপনার প্রজা নয়। সেই যুগ এবার শেষ দিদি।

মোদি কোচবিহারে নির্বাচন নিয়ে আজকের সংঘর্ষের প্রেক্ষিতে ৫ জনের জীবনহানির জন্য দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, পুলিশ সব অন্যায়ের বিচার করবে। কোন অন্যায়কারীকে রেহাই দেওয়া হবেনা। বাংলায় আজ পরিবর্তনের সূচনা হয়েছে। দিদি বাংলার গরীব মানুষের জন্য কিছুই করেনি। তাই দিদি এই বাংলার ভাগ্যনিয়ন্ত্রক নয়।

এবার ১০ বছরের দুর্নীতির হিসাব দিতে হবে দিদির। এই বাংলায় বিচার হবে দুর্নীতির। বিচার হবে আম্পানের ত্রাণ চোর, অর্থচোরদেরও। মোদি প্রশ্ন করেন, দিদি কী করেছেন পাহাড়বাসীর জন্য? কোনও উন্নয়নই করেননি। শুধু দুর্নীতির রাজত্ব কায়েম করে গেছে।

মোদি আরও বলেছেন, দিদির ভোট ব্যাংকের রাজনীতি বাংলাকে খাদের কিনারায় নিয়ে গেছে। এবার এই বাংলায় বিজেপি সরকার গড়ার পর বাংলাকে সেই কিনারা থেকে টেনে উপরে তুলে এই বাংলাকে সোনার বাংলায় রূপ দেবে।

মোদি আজ শিলিগুড়িতে জনসভায় যোগ দিয়ে বিকেলে গেছেন পশ্চিমবঙ্গের নদীয়া জেলার কৃষ্ণনগরে। সেখানে তিনি বিজেপি প্রার্থী মুকুল রায়ের সমর্থণে আয়োজিত এক জনসভায় যোগ দেবেন।

বিজ্ঞাপন
ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন