গতকাল মঙ্গলবার ঈদুল ফিতরের দিনও যোধপুরের নানা এলাকায় পাথর ছোড়া ও সংঘর্ষের ঘটনার খবর পাওয়া গেছে। পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিতে আবার কঠোর হয় পুলিশ।

স্থানীয় পুলিশ কন্ট্রোল রুম সূত্রে এনডিটিভি জানায়, যোধপুরের উদয় মন্দির, নগরী গেট, খান্ডা ফালসা, প্রতাপনগর, দেবনগর, সুরসাগর ও সরদারপুরা থানা এলাকায় মধ্যরাত পর্যন্ত কারফিউ জারি রয়েছে। গুজব রুখতে বন্ধ করা হয়েছে ইন্টারনেট। গতকাল পুলিশের পাহারায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলটের দাবি, এই সহিংসতার ঘটনায় বিজেপি জড়িত। মঙ্গলবার এনডিটিভিকে তিনি বলেন, এটি বিজেপির একটি অ্যাজেন্ডা। কারণ, মুদ্রাস্ফীতি, বেকারত্ব অনেক বেড়ে গেছে। তারা তা নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না। সেখান থেকে মানুষের মনোযোগ সরাতে ইচ্ছা করে তারা এসব করছে।

এর আগে গত কয়েক সপ্তাহে রমজান মাস এবং রামনবমী ও হনুমানজয়ন্তী উৎসব ঘিরে ভারতের দিল্লি, গুজরাট, মধ্যপ্রদেশ, ঝাড়খন্ড ও পশ্চিমবঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।