লাদাখে  উত্তেজনা, দুপক্ষের গুলি ছোড়ার অভিযোগ

বিজ্ঞাপন
default-image

পূর্ব লাদাখে উত্তেজনা বেড়েই চলেছে। ভারত ও চীন দুপক্ষই গুলি ছোড়ার অভিযোগ করেছে। প্যাংগং লেকের দক্ষিণাঞ্চলের হাতছাড়া হওয়া সুবিধাজনক এলাকা পুনরুদ্ধারে মরিয়া চীনা ফৌজ সক্রিয় হয়ে উঠছে। ভারতীয় বাহিনীর তৎপরতায় চীনা কৌশল বানচাল হওয়ায় তারা শূন্যে গুলিও চালিয়েছে বলে ভারতের অভিযোগ। চীনও গুলি ছোড়ার পাল্টা অভিযোগ করেছে। চীনের মোকাবিলায় ভারত ওই অঞ্চলে বাড়তি সেনা মোতায়েন করেছে। নিয়ে যাওয়া হয়েছে ট্যাংক বাহিনীও। পরিস্থিতি উত্তেজনাপূর্ণ।

সেনাপ্রধান মনোজ মুকুন্দ নারভানে প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংকে পরিস্থিতির বিস্তারিত বিবরণ জানিয়েছেন। মঙ্গলবার প্রতিরক্ষামন্ত্রীকে তিনি জানান, রেচিন লা, রেজাং লা, মুকপুরী ও মগর হিলসের উঁচু এলাকাগুলো ভারতীয় জওয়ানদের দখলে রয়েছে। এই এলাকা দখলে ব্যর্থ চীনা ফৌজ ফিরে যাওয়ার আগে শূন্যে গুলি চালায়। দক্ষিণ প্যাংগংয়ে প্রায় ৭ হাজার ভারতীয় জওয়ান মজুত রয়েছেন।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গালওয়ান উপত্যকায় গত ১৫ জুনের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের পর থেকে পূর্ব লাদাখের বিস্তীর্ণ এলাকা এখনো থমথমে। বারবার সেনা পর্যায়ে বৈঠক সত্ত্বেও চীন প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় (এলএসি) স্থিতাবস্থা বজায় রাখতে রাজি হয়নি। এই পরিস্থিতিতে প্যাংগং লেকের দক্ষিণাঞ্চলে ভারতীয়দের দখল থেকে উঁচু এলাকাগুলো কেড়ে নিতে চীনা ফৌজ সক্রিয় হয়ে ওঠে। গত সোমবার সন্ধ্যা সাতটা নাগাদ চীনা বাহিনী চলে আসে এক ফরওয়ার্ড পোস্টের কাছাকাছি। ভারতের দাবি, চীনা ফৌজ ভারতীয়দের ভয় দেখাতে বার কয়েক শূন্যে গুলি ছোড়ে। যদিও চীনের অভিযোগ, গুলি ছোড়েন ভারতীয় জওয়ানরাই।

চীনের অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে ভারতীয় বাহিনী জানায়, সেনা ও কূটনৈতিক স্তরে আলোচনা চলাকালে চীন বারবার স্থিতাবস্থা নষ্টের চেষ্টা করছে। ভারত শান্তি ও সুস্থিতি বজায় রাখার পক্ষে। যদিও একই সঙ্গে দেশের অখণ্ডতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষায় দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। সেনা বিবৃতিতে বলা হয়েছে, চীনের প্ররোচনা সত্ত্বেও ভারতীয় জওয়ানেরা সংযত থেকে বিবেচকের পরিচয় দিয়েছেন। এলএসি অতিক্রম করেননি।

পূর্ব লাদাখের উত্তেজনার মধ্যেই চীন ভারতের অরুণাচল প্রদেশ নিয়ে নতুন করে জল ঘোলা করতে চাইছে। সম্প্রতি অরুণাচল প্রদেশ থেকে পাঁচ ভারতীয় অপহৃত হন। সন্দেহ, চীনা ফৌজ তাঁদের অপহরণ করেছে। চীন এই সন্দেহ অবান্তর মনে করে। অপহরণের অভিযোগ উড়িয়ে তারা জানিয়েছে, অরুণাচল প্রদেশকে তারা নিজেদের অংশ বলেই মনে করে।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পূর্ব লাদাখে উত্তেজনা প্রশমনে দুই দেশের সেনা কর্তাদের মধ্যে ছয়বার বৈঠক হয়েছে। কূটনৈতিক স্তরেও আলোচনা হয়েছে একাধিকবার। সম্প্রতি মস্কোয় সাংহাই কো-অপারেশন অর্গানাইজেশনের (এসসিও) সম্মেলনের অবসরে ভারত ও চীনের দুই প্রতিরক্ষামন্ত্রীর মধ্যেও দীর্ঘ আলোচনা হয়। কিন্তু উত্তেজনা এখনো কমেনি। বরং চীনের প্ররোচনা বেড়ে গেছে বলে ভারতের অভিযোগ। এই পরিস্থিতিতে বৃহস্পতিবার মস্কোতেই বৈঠকে বসতে চলেছেন দুই দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা। সেই বৈঠকের আগে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর বলেছেন, এলএসির অবস্থা অত্যন্ত গুরুতর। এই উত্তেজনার প্রভাব থেকে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক মুক্ত থাকতে পারে না। সীমান্তের অস্থির অবস্থা থেকে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ককে বিচ্ছিন্ন করা যায় না। তিনি বলেন, সীমান্তে শান্তি স্থাপন ও স্থিতাবস্থা ফেরানোর মধ্য দিয়ে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ককে উন্নত করাই হবে চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ইর সঙ্গে তাঁর বৈঠকের একমাত্র লক্ষ্য।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন