default-image

পশ্চিমবঙ্গের জঙ্গলমহলের পুরুলিয়া শহরের কাছে ভাঙরা নবকুঞ্জ ময়দানে আজ বৃহস্পতিবার নির্বাচনী জনসভায় ভাষণ দিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। দুপুরে বিজেপি আয়োজিত জনসভায় তিনি বলেন, মমতার ১০ বছরের রাজ্যশাসনের খেলা এবার বন্ধ হবে। তাঁর অত্যাচারের খেলা বন্ধ হবে। এ বাংলায় ২ মের পর ক্ষমতায় আসছে বিজেপি। ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে এ বাংলায় তৃণমূল হয়েছিল হাফ, এবার বিধানসভায় হবে সাফ।

ভাষণে নরেন্দ্র মোদি আরও বলেন, এ বাংলায় আর নয় অন্যায়, এবার হবে আসল পরিবর্তন। বাংলায় আগে সিপিএম ও তৃণমূল কিছুই করেনি। এবার করবে বিজেপি। বিজেপিই বাংলাকে ‘ডাবল ইঞ্জিন’ সরকারের মাধ্যমে সোনার বাংলা গড়ে তুলবে। বাংলায় তৃণমূলের অপশাসন বন্ধ করা হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এখন তো তৃণমূল ভেদাভেদের রাজনীতি নিয়ে মত্ত। নিজেদের নিয়ে মত্ত রাজনৈতিক খেলায়। এসব খেলা আর বরদাশত করবে না বাংলার মানুষ। রাজধানী দিল্লি ও বাংলায় একই দলের, অর্থাৎ ডাবল ইঞ্জিনের সরকার গড়ে বিজেপি উন্নয়নের শিখরে তুলবে বাংলাকে। তিনি আরও বলেন, ১০ বছরে এ বাংলায় বেকার বেড়েছে, শিল্প হয়নি, মানুষের মুখে হাসি ফোটেনি। এবার বাংলায় বিজেপি আসছে হাসি ফোটাতে।

নরেন্দ্র মোদি বলেন, তৃণমূল সরকার নিজেদের স্বার্থে বাংলায় প্রশ্রয় দিয়েছে মাওবাদীদের, অনুপ্রবেশকারীদের। বিজেপি সরকার এলে এসব সমস্যার সমাধান হবে।

বিজ্ঞাপন

মানুষ নির্ভয়ে এ রাজ্যে শান্তিতে থাকবে। কর্মসংস্থানের জন্য তাদের ভিনরাজ্যে পাড়ি দিতে হবে না। তিনি আরও বলেন, পুরুলিয়ার আদিবাসীদের কোনো উন্নয়ন হয়নি। এখানে কোনো সেতু হয়নি। পর্যটনশিল্পের উন্নয়ন হয়নি। বিজেপি ক্ষমতায় এলে পর্যটনশিল্প, যোগাযোগব্যবস্থার উন্নয়ন করা হবে।

মোদি আরও বলেন, রাজ্যে অনেক অত্যাচার করেছে তৃণমূল। এ অত্যাচারের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছে মানুষ। তাই তৃণমূলের ১০ বছরের অত্যাচারের খেলা এবার বন্ধ হবে। দিদি বলেন, খেলা হবে। কিন্তু বিজেপি বলে, চাকরি হবে, বাংলার উন্নয়ন হবে, স্কুল-কলেজ হবে, হাসপাতাল হবে, নারীরা স্বাবলম্বী হবে, মাফিয়া রাজের অবসান হবে। চাঁদাবাজি, কাটমানির সংস্কৃতি বন্ধ হবে। সিন্ডিকেট বন্ধ হবে।

প্রধানমন্ত্রী মোদি বলেন, ২ মে হবে তৃণমূলের পতনের দিন। এরপর একে দেখা যাবে হাতে গোনা মানুষের দল হিসেবে। তাই তো এবার বাংলার মানুষ সিদ্ধান্ত নিয়েছে, আর নয় তৃণমূল।

মমতারও তিনটি নির্বাচনী সভা আজ

তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও আজ তিনটি নির্বাচনী সভা করবেন পশ্চিমবঙ্গের পশ্চিম মেদিনীপুরের তিন জায়গা—গড়বেতা, কোশিয়ারি ও খড়গপুর সদরের কলাইকুন্ডায়। দুপুরে গড়বেতায় প্রথম সভায় মমতা হুইল চেয়ারে বসে দেওয়া ভাষণে বলেন, বিজেপি মিথ্যা বলার গ্যাস বেলুন। দুর্যোগের সময় বিজেপি নেতাদের দেখা মেলে না। কিন্তু ভোটের সময় তারা টাকার বাক্স নিয়ে হাজির হয়।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বলেন, ‘ওরা আসলে লুটেরা। বিজেপি একটা সর্বনাশা দল। ওরা নির্বাচনী প্রচারে বাইরে থেকে লোক এনে ভয় দেখাবে, ভোট লুট করবে। ওদের ব্যাপারে সাবধান হোন। এবার একটি ভোটও নয় বিজেপিকে। ভোট দেবেন তৃণমূলকে।’

মমতা আরও বলেন, সিপিএমের গুন্ডারা এখন বিজেপিতে যোগ দিয়েছে। জঞ্জালের পার্টি হলো বিজেপি। লুটেরা বাহিনী ভোট চাইতে এলে তাদের তাড়িয়ে দিন। হাতা-খুন্তি নিয়ে তাড়ান তাদের। তাই বলছি, দুয়ারে সাপ লুকিয়ে থাকে, বাঘ লুকিয়ে থাকে। তাদের ঢুকতে দেবেন না।

বিজ্ঞাপন
ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন