default-image

আসামের অর্থমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্বশর্মা বলেছেন, তাঁর রাজ্যের জন্য তৈরি জাতীয় নাগরিকপঞ্জি (এনআরসি) পুরোটাই ভুলে ভরা। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে যাঁকে তা তৈরির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল, গড়বড় তিনিই করেছেন। হিমন্ত বিশ্বশর্মা বলেছেন, রাজ্য বিধানসভার নির্বাচনের পর সুপ্রিম কোর্ট রাজি হলে নতুন করে আসামের এনআরসি তৈরি করা হবে।

আসাম বিধানসভার ভোট আগামী বছর মে মাসে। তার আগে বিজেপির শীর্ষ নেতা ও রাজ্যের প্রভাবশালী মন্ত্রীর এই ঘোষণা স্পষ্টতই ভোটের আগে ধর্মীয় বিভাজনের রাজনীতি বলে মনে করা হচ্ছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সর্বভারতীয় ইংরেজি দৈনিক দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস আয়োজিত এক আলোচনায় এই কথা জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আধুনিক মোগলদের হাত থেকে রাজ্যকে মুক্ত করার লড়াই দীর্ঘস্থায়ী হবে। আরও পাঁচ বছর আমরা ওদের বিরুদ্ধে লড়াই চালাতে পারলে জয় পাব। সেই লড়াইয়ের জন্য এনআরসি ও বিধানসভা নির্বাচনী কেন্দ্রের পুনর্নির্ধারণ প্রয়োজন।’

বিজ্ঞাপন

সুপ্রিম কোর্ট এনআরসি তৈরির দায়িত্ব দিয়েছিলেন প্রতীক হাজেলাকে। ওই সরকারি আমলাই ছিলেন এনআরসির সমন্বয়ক। হিমন্ত জানান, মৌলিক দিক থেকে ওই ভুল তালিকা তিনিই তৈরি করেছিলেন।

গত বছরের ৩১ আগস্ট এনআরসির পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশিত হয়। তাতে ১৯ লাখ মানুষ ‘অনাগরিক’ হিসেবে চিহ্নিত হন, যাঁদের সিংহভাগই হিন্দু। রাজ্য বিজেপির পক্ষে সেই তালিকা গ্রহণ করা কঠিন হয়ে যায়। তারা নতুন এনআরসির দাবি জানায়।

রাজনৈতিক ধারণা, ভোটের আগে ধর্মীয় বিভাজনের চেষ্টায় বিজেপি নতুন করে এনআরসিকে হাতিয়ার করতে চাইছে।

মন্তব্য পড়ুন 0