default-image

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনের প্রচারে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, ‘বিজেপিকে “এপ্রিল ফুল” করে দিন।’ নন্দীগ্রামের রেয়াপাড়ায় আয়োজিত জনসভায় গতকাল মঙ্গলবার এ কথা বলেন মমতা।

গতকাল নির্বাচনী প্রচারে নন্দীগ্রামের জনসভায় মমতা হঠাৎ হুইলচেয়ার ছেড়ে উঠে দাঁড়ান। শ্রদ্ধা জানান জাতীয় সংগীতকে।

জনসভায় মমতা আরও বলেন, ‘কী সাহস ওদের? আমি বাংলার মুখ্যমন্ত্রী, আর আমাকে বলে কিনা আমি বহিরাগত। ভাবুন আপনারা। ওরা কি ভোট পাবে এই বাংলায়? বাংলার মানুষ তো বাংলার মেয়েকে ভোট দেবেন, মমতাকে মুখ্যমন্ত্রী বানাবেন।’

মমতা নন্দীগ্রাম আসনে প্রচার চালাতে গত রোববার চলে আসেন নন্দীগ্রামে। সেখানে রেয়াপাড়ায় তাঁর এক পরিচিত ব্যক্তির বাড়িতে উঠে চালাচ্ছেন নির্বাচনী প্রচার। রেয়াপাড়ায় আয়োজিত সভায় মমতা আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘নন্দীগ্রামের ভোট আগামীকাল বৃহস্পতিবার। ওই দিন আপনারা “এপ্রিল ফুল” করে দিন বিজেপিকে। বিজেপিকে ভোট না দিয়ে তৃণমূলকে ভোট দিন। ওরা আজ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে নিয়ে এসেছেন পুলিশকে ধমকানো ও চমকানোর জন্য। আর তো মাত্র কয়েক ঘণ্টা। তারপর তো ওদের পগারপার হতে হবে। আর ওদের হলদী নদীর ধারেকাছেও খুঁজে পাওয়া যাবে না। তখন এখানে আমরাই থাকব।’

বিজ্ঞাপন

পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনে অংশ নেওয়ার জন্য তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ১০ মার্চ পূর্ব মেদিনীপুর জেলার নন্দীগ্রাম আসনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন। মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার পর নন্দীগ্রামের কয়েকটি মন্দির পরিদর্শন করে ফেরার পথে তিনি রেয়াপাড়া বাজারে দুর্ঘটনায় পড়েন। মমতার অভিযোগ, ওই সময় চার থেকে পাঁচজন ব্যক্তি তাঁর গাড়ির দরজা চেপে দিলে তিনি আহত হন। এরপরই ওই দিন রাতে তাঁকে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয় কলকাতার পিজি হাসপাতালে। দুদিন পর ১২ মার্চ তিনি হাসপাতাল থেকে ছুটি পেয়ে হুইলচেয়ারে করে নির্বাচনী প্রচারে নামেন। সেই থেকে ২০ দিন ধরে মমতার নির্বাচনী প্রচার চলছিল হুইলচেয়ারে।

আগামীকাল পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনের দ্বিতীয় দফার ভোট। আট দফায় অনুষ্ঠেয় এই দ্বিতীয় দফার নির্বাচন হবে রাজ্যের চারটি জেলার ৩০টি আসনে। বাঁকুড়া, পশ্চিম মেদিনীপুর, পূর্ব মেদিনীপুর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলায়। দ্বিতীয় দফার নির্বাচনে আকর্ষণের কেন্দ্রে রয়েছে পূর্ব মেদিনীপুরের নন্দীগ্রাম আসনটি। এ আসনে একদিকে লড়ছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, অন্যদিকে মমতারই একসময়ের ঘনিষ্ঠ কর্মী ও বর্তমানে বিজেপির প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী।

অন্যদিকে, অমিত শাহ গতকাল মঙ্গলবার নন্দীগ্রাম এসে প্রথম রোড শো করেন নন্দীগ্রামের ভেটুরিয়া বাজার থেকে রেয়াপাড়া পর্যন্ত। তিনি বলেন, দুই শতাধিক আসনে জিতে এই বাংলায় এবার সরকার গড়বে বিজেপি। মোদির নেতৃত্বে বিজেপিই সোনার বাংলা গড়বে।

অমিত শাহ গতকাল আরও রোড শো করেন ডেবরায় ও পাশকুড়ায়। অমিত শাহর পাশাপাশি বলিউড তারকা মিঠুন চক্রবর্তীও গতকাল নন্দীগ্রামে আরেকটি রোড শোতে অংশ নেন।

বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের আবেদন

এদিকে গত রোববার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নন্দীগ্রামে ২০০৭ সালের ১৪ মার্চ জমি আন্দোলনকারীদের ওপর পুলিশের গুলিবর্ষণের ঘটনায় দায়ী করেন কাঁথির অধিকারী পরিবারের নেতা শিশির অধিকারী ও তাঁর পুত্র শুভেন্দু অধিকারীকে। মমতা বলেছেন, তাঁরাই সেদিন পুলিশকে দিয়ে আন্দোলনকারীদের ওপর গুলিবর্ষণের ব্যবস্থা করেছিলেন। মমতার এই মন্তব্যে কার্যত সেদিন বামফ্রন্টের ওপর চাপানো মমতার দোষ মমতাই নিজেই খণ্ডন করায় খুশি হয়েছে রাজ্যের সিপিএম নেতৃত্ব। তারা বলেছে, সত্য কোনো দিন চাপা থাকে না। এবার সেই সত্য কথা উঠে এল মুখ্যমন্ত্রীর মুখে।

মমতার এই মন্তব্যের পর পশ্চিমবঙ্গের তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য গতকাল একটি অডিও বার্তায় অনুরোধ করে বলেছেন, বাংলার স্বার্থে এবার বাংলার মানুষ যেন এই রাজ্যে একটি ধর্মনিরপেক্ষ সরকার গড়ার পক্ষে ভোট দিন। তিনি বলেন, ‘আজ এই বাংলায় গণতন্ত্র আক্রান্ত। গত ১০ বছরে এই বাংলায় কোনো শিল্প হয়নি। নারীর সুরক্ষা নেই। রাজ্যের যুবসমাজ দিগ্‌ভ্রান্ত। রাজ্যের মেধাবী ছাত্রছাত্রীরা কাজ না পেয়ে অন্যত্র চলে যাচ্ছে। নন্দীগ্রাম ও সিঙ্গুরে আজ শ্মশানের নীরবতা। এবার তাই ঐক্যবদ্ধ হয়ে একটি ধর্মনিরপেক্ষ সরকার গড়ার জন্য আমাদের এগিয়ে আসতে হবে।’

বিজ্ঞাপন
ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন