তিন যুগ পর উত্তর কোরিয়ার ক্ষমতাসীন দল ওয়ার্কার্স পার্টির কংগ্রেস বসেছে গতকাল শুক্রবার। পাঁচ দিনের এই কংগ্রেসকে কমিউনিস্ট দেশটির সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক ঘটনা হিসেবে আখ্যায়িত করা হচ্ছে।

এর আগে ১৯৮০ সালে উত্তর কোরীয় ওয়ার্কার্স পার্টির সর্বশেষ কংগ্রেস হয়। 

কিমের ক্ষমতা পাকাপোক্ত করা এবং আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞার কবলে পড়া দেশটির ‘মর্যাদা’ বাড়ানোই এ দলীয় কংগ্রেস আয়োজনের উদ্দেশ্য বলে মনে করা হচ্ছে। এই কংগ্রেস চলার সময়ই নজর কাড়ার জন্য নতুন একটি পরমাণু পরীক্ষার সম্ভাবনার কথাও বলা হচ্ছে।

রাজধানী পিয়ংইয়ংয়ে আয়োজিত কংগ্রেসে পুরো দেশ থেকে দলটির কয়েক হাজার মনোনীত প্রতিনিধি যোগ দেন। এ আয়োজন নিয়ে প্রতিবেদন করতে ১৩০ জন বিদেশি সাংবাদিক গিয়েছেন নিভৃতিকামী দেশটিতে।

গতকালের কংগ্রেসে যে বিষয়টি সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে তা হলো, উত্তর কোরিয়ার গুরুত্বপূর্ণ মিত্রদেশ চীনের কোনো প্রতিনিধির অনুপস্থিতি। বড় মিত্রের সঙ্গে উত্তর কোরিয়ার সম্পর্কের সাম্প্রতিক টানাপোড়েনই এর কারণ বলে বিশ্লেষকদের ধারণা। 

গতকাল কংগ্রেসে মূল বক্তব্য দেওয়ার কথা ছিল শীর্ষ নেতা কিমের। কংগ্রেসে তিনি দলের নেতৃত্বে কিছু রদবদল করবেন বলে মনে করা হচ্ছে। 

বিজ্ঞাপন
ভারত থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন