'গুলি মারো' বিপত্তি

বিজ্ঞাপন
default-image

বিতর্কিত স্লোগানের কারণে সমালোচনায় পড়েছেন ভারতের কেন্দ্রীয় অর্থ প্রতিমন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর। গতকাল সোমবার দিল্লিতে নির্বাচনী প্রচারের মধ্যে অনুরাগ ঠাকুর মাথার ওপর দু হাত তুলে তালি দিয়ে স্লোগান দেন, ‘দেশদ্রোহীদের গুলি করে মারো।’ দিল্লির উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের রিথালা এলাকায় অনুরাগ ঠাকুরের ওই প্রচারের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়। এরপরই কঠোর সমালোচনার মুখে পড়েন এই বিজেপি নেতা।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হওয়া ওই ভিডিওতে দেখা যায়, অনুরাগ ঠাকুর স্লোগান তুলছেন, ‘দেশের বিশ্বাসঘাতকদের...,’ এর পরই উপস্থিত কর্মী-সমর্থকদের বলতে শোনা যায়, ‘গুলি মার শা...।’ অর্থাৎ, দেশের সঙ্গে যারা বিশ্বাসঘাতকতা করেছে, তাদের গুলি করে মেরে ফেলো। এনডিটিভি অনলাইনের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

এ বিষয়ে বিজেপির পক্ষ থেকে বলা হয়, উপস্থিত সমর্থকদের পক্ষ থেকে ‘গুলি মারো’ কথা উঠে আসে, অনুরাগ ঠাকুরের মুখ থেকে নয়। কেন্দ্রীয় ওই মন্ত্রীর তোলা স্লোগানের জবাব দিতেই ওই ‘গুলি মারো’ স্লোগান। তবে ভিডিও ফুটেজে স্পষ্ট দেখা যায়, সমর্থকদের মুখে এমন স্লোগান শুনে ঠাকুরের মুখে কোনো নেতিবাচক অভিব্যক্তি ছিল না।

এ বিষয়ে এনডিটিভির পক্ষ থেকে নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে রিথালা কেন্দ্রের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘আমরা একটা ভিডিও ফুটেজ পেয়েছি। সেটা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ প্রাথমিক তদন্তে দেখা গেছে, ওই কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী মণীশ চৌধুরী মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন। যদিও ঠিক কী ব্যবস্থা নেওয়া হবে, স্পষ্ট করেননি ওই কর্মকর্তা।

ওই কর্মকর্তা বলেন, তদন্তে ওই স্লোগান তোলার বিষয়টি প্রমাণিত হলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির থেকে কৈফিয়ত তলব করা হবে।

এর প্রতিক্রিয়ায় বিজেপিকে আসল ‘বিশ্বাসঘাতক’ বলে মন্তব্য করেন কংগ্রেস নেতা ও প্রচার কমিটির প্রধান কীর্তি আজাদ। গণমাধ্যমে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘দেশের শান্তি ও সম্প্রীতি নষ্ট করছে বিজেপি। তাই ওরা আসল বিশ্বাসঘাতক।’

আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি দিল্লির ৭০টি আসনে বিধানসভা নির্বাচন হবে যার ফল ঘোষণা করা হবে ১১ ফেব্রুয়ারি।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন