করোনার টিকা নিয়ে ইসরায়েলের সঙ্গে চুক্তি বাতিল করল ফিলিস্তিন

এএফপি প্রতীকী ছবি

ইসরায়েলের কাছ থেকে করোনাভাইরাসের টিকা পেতে যে চুক্তি করা হয়েছিল, তা বাতিল করেছে ফিলিস্তিন। কর্তৃপক্ষ বলেছে, ফাইজারের যে টিকা ইসরায়েলের কাছ থেকে পাওয়ার কথা ছিল, তা মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ার খুব কাছাকাছি।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির খবর অনুযায়ী, চুক্তি অনুসারে ইসরায়েলের কাছ থেকে কমপক্ষে দশ লাখ ডোজ পাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ফিলিস্তিনের স্বাস্থ্যমন্ত্রী মাই আলকাইলা বলেন, তাঁরা বলেছিলেন, টিকার মেয়াদ যেন জুলাই বা আগস্ট পর্যন্ত থাকে। কিন্তু যেসব টিকা এসেছে, তার মেয়াদ রয়েছে জুন পর্যন্ত। তিনি বলেন, ‘এসব টিকা ব্যবহার করার মতো যথেষ্ট সময় নেই। ফলে আমরা এসব টিকা গ্রহণ করিনি।’

টিকার চুক্তি বাতিলের বিষয়ে ইসরায়েল আনুষ্ঠানিকভাবে এখনো কোনো মন্তব্য করেনি।

ফিলিস্তিন সরকারের মুখপাত্র ইব্রাহিম মেলহেম বলেন, চুক্তি অনুসারে প্রাথমিকভাবে ৯০ হাজার ডোজ আসার কথা। কিন্তু চুক্তির শর্ত পূরণ করতে না পারায় এই চুক্তি বাতিলের নির্দেশ দিয়েছেন ফিলিস্তিনের প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ শতেয়াহ।

ইব্রাহিম মেলহেম বলেন, মেয়াদ উত্তীর্ণ হতে চলেছে, এমন টিকা নিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে ফিলিস্তিন সরকার। ফাইজারের কাছ থেকে সরাসরি যে টিকা পাওয়ার কথা, তার জন্য অপেক্ষা করা হবে।

অবশ্য ইসরায়েল যে মেয়াদ শেষ হতে চলা টিকা পাঠাবে, তা আগেই বলেছিলেন দেশটির নতুন প্রধানমন্ত্রী নাফতালি বেনেথ। তিনি বলেছিলেন, মেয়াদ শেষ হতে যাওয়া ১০ লাখ ডোজ টিকা ফিলিস্তিনে পাঠাবেন তারা।

ফাইজার–বায়োএনটেকের টিকা সংরক্ষণ করে টিকাদান কর্মসূচি চালিয়েছে ইসরায়েল। দেশটির মোট জনসংখ্যার ৫৫ শতাংশই দুই ডোজ টিকা পেয়ে গেছে। ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের মধ্যে যুদ্ধবিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করে পাল্টাপাল্টি হামলার মধ্যেই টিকার বিষয়টি সামনে এল।