default-image

পাকিস্তানে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ আবার বাড়ছে। করোনার বিস্তার ঠেকাতে দেশটির রাজধানী ইসলামাবাদের কিছু এলাকা ‘অবরুদ্ধ’ করা হয়েছে। এ ছাড়া দেশটির জাতীয় পরিষদের (ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলি) কার্যক্রম আংশিকভাবে স্থগিত করা হয়েছে।

আজ সোমবার পাকিস্তানের দ্য ডন পত্রিকার প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়।

পাকিস্তানে গত ২৪ ঘণ্টায় ২ হাজার ৬০০ জনের বেশি করোনায় সংক্রমিত রোগী শনাক্ত হয়েছে। গত দুই সপ্তাহে সক্রিয় সংক্রমিত ব্যক্তির সংখ্যা ১৬ হাজার থেকে বেড়ে ২১ হাজার হয়েছে। জাতীয়ভাবে করোনা পজিটিভের হার বেড়ে ৬ দশমিক ২ শতাংশ হয়েছে। দেশটিতে রাজনৈতিক নেতাদের মধ্যে সবশেষ সংক্রমিত হয়েছেন আওয়ামী ন্যাশনাল পার্টির (এএনপি) প্রধান আসফানদিয়ার ওয়ালি খান।

বিজ্ঞাপন

করোনা সংক্রমণের এই পরিস্থিতিতে ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলির কার্যক্রম আংশিকভাবে স্থগিত করা হয়েছে।

যুক্তরাজ্যে শনাক্ত করোনার নতুন ধরনের বিস্তার রাজধানী ইসলামাবাদে অব্যাহত রয়েছে। সংক্রমণ ঠেকাতে ইসলামাবাদের পাঁচটি আবাসিক এলাকা অবরুদ্ধ করা হয়েছে। সব ধরনের উৎসব, অনুষ্ঠান ও বড় জমায়েতের অনুমোদন বাতিল করা হয়েছে। ঘরোয়াভাবেও কোনো অনুষ্ঠানের অনুমতি দেওয়া হবে না। বাইরে অনুষ্ঠানের ক্ষেত্রে শর্ত আরোপ করা হয়েছে।

ইসলামাবাদের ডেপুটি কমিশনার হামজা শাফকাত এক টুইটে বলেন, সংশ্লিষ্ট এলাকায় এক দিনে করোনা শনাক্তের সংখ্যা অনেকটা বেড়ে গেছে। তাই কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। আরও এলাকা লকডাউন করা হতে পারে। যুক্তরাজ্যে শনাক্ত করোনার নতুন ধরন ইসলামাবাদে ছড়াচ্ছে। ৫০ শতাংশের বেশি কর্মীকে অফিসে আনা যাবে না।

কোনো এলাকায় মাস্ক পরা ও সামাজিক দূরত্বের বিধি লঙ্ঘন করা হলে এলাকাটি অবরুদ্ধ করে দেওয়া হবে।

করোনার বিস্তার ঠেকাতে গৃহীত পদক্ষেপের বিষয় জানিয়ে ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলি সচিবালয় একটি বিবৃতি দিয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয়, করোনার সংক্রমণ বেড়ে গেছে।

করোনার বিস্তার ঠেকাতে ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলির সব ধরনের কার্যক্রম আংশিকভাবে স্থগিত করার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলির সচিবালয় দপ্তর ১৫ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। অ্যাসেম্বলির স্ট্যান্ডিং কমিটিসহ অন্যান্য কমিটির বৈঠক বাতিল করা হয়েছে। ১৬ মার্চ ন্যূনতম জনশক্তি দিয়ে সচিবালয়ের কার্যক্রম শুরু হবে। কর্মীদের মাস্ক পরতে বলা হয়েছে। সামাজিক দূরত্বের বিধি মানতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। কারও সঙ্গে হাত মেলানো পরিহার করতে বলা হয়েছে।

পাকিস্তানে এখন পর্যন্ত ৬ লাখ ৫ হাজার ২০০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। দেশটিতে করোনায় মারা গেছেন ১৩ হাজার ৫০৮ জন।

বিজ্ঞাপন
পাকিস্তান থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন