default-image

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, চলতি মাসে অনুষ্ঠেয় জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে ‘কাশ্মীর ইস্যু’টি তিনি এভাবে উপস্থাপন করবেন, যা ‘ইতিপূর্বে অন্য কেউ করেননি’। তিনি আরও বলেন, ভারতনিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা পুনর্বহাল ও সেখানে জারি করা কারফিউ তুলে না নেওয়া পর্যন্ত ভারতের সঙ্গে কোনো আলোচনা হবে না।

ডন অনলাইনের খবরে এ কথা জানানো হয়। গতকাল বুধবার পাকিস্তান-আফগানিস্তান সীমান্তে ইন্টিগ্রেটেড ট্রানজিট ট্রেড ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের উদ্বোধনীতে ইমরান খান এসব কথা বলেন।

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেন, পাকিস্তানের প্রতি ভারত সরকারের নীতি হলো ঘৃণার নীতি। মুসলমানদের ঘৃণা করার এই নীতি হলো দেশটির রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের (আরএসএস) নীতি। কাজেই ভারতনিয়ন্ত্রিত কাশ্মীর থেকে সরকার কারফিউ না তুলে নিলে এবং সংবিধানের বাতিল করা ৩৭০ ধারা পুনর্বহাল না করা পর্যন্ত নয়াদিল্লির সঙ্গে আলোচনার কোনো সুযোগ নেই।

গত ৫ আগস্ট বিজেপিশাসিত কেন্দ্রীয় সরকার জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদাসংবলিত ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ধারা এবং সংশ্লিষ্ট ৩৫এ ধারা বাতিল, কাশ্মীরকে দ্বিখণ্ডিত করা এবং কাশ্মীরের জনগণের ওপর কেন্দ্রীয় শাসনের নামে প্রত্যক্ষ দখলদারির শাসন চাপিয়ে দেয়।

কাশ্মীরিদের জন্য পাকিস্তানের কেউ যুদ্ধে যেতে চাইলে তিনি বিষয়টি কীভাবে দেখবেন, এক সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে ইমরান খান বলেন, পাকিস্তানের কেউ কাশ্মীরের জন্য যুদ্ধে যেতে চাইলে কিংবা কাশ্মীরে জিহাদে গেলে তা কাশ্মীরিদের প্রতি অত্যন্ত অবিচার করা হবে এবং এ ধরনের পদক্ষেপ কাশ্মীরিদের চোখে বিদ্বেষমূলক বলেই বিবেচিত হবে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন