default-image

ধর্ষণের ঘটনা বৃদ্ধির কারণ হিসেবে নারীর পোশাককে দোষারোপ করে বিতর্কে পড়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে তিনি মন্তব্য করেছেন, ‘যেকোনো সমাজেই ধর্ষণের ঘটনা বৃদ্ধি ইঙ্গিত দেয় যে সেখানে অশ্লীলতা বেড়ে গেছে।’

কাতারভিত্তিক সম্প্রচারমাধ্যম আল জাজিরার খবরে বলা হয়, ওই সাক্ষাৎকারে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নারীদের শালীন পোশাক পরার পরামর্শও দেন। তিনি বলেন, ‘পর্দা করার সারবস্তুই হলো আকর্ষণ করা থেকে বিরত থাকা। নিজেকে বিরত রাখার ইচ্ছাশক্তি সবার নেই।’

বিজ্ঞাপন

ইমরান খানের ওই মন্তব্যের পর প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছে মানবাধিকার সংগঠনসহ বিভিন্ন অধিকার সংগঠন। অনলাইনে বুধবার এ-সংক্রান্ত একটি বিবৃতিতে অনেকেই স্বাক্ষরও করেছেন। ওই বিবৃতিতে ইমরান খানের মন্তব্যকে ‘ত্রুটিপূর্ণ, রূঢ় ও বিপজ্জনক’ বলে আখ্যায়িত করা হয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘ধর্ষণের ঘটনার অপরাধ কেবলমাত্র ধর্ষকের ওপরই বর্তায় এবং (ইমরান খানের মন্তব্যের মতো) বক্তব্যের সংস্কৃতি ধর্ষককে উৎসাহিত করে।’
এর আগে হিউম্যান রাইটস কমিশন অব পাকিস্তান মঙ্গলবার মন্তব্য করে, ইমরান খানের মন্তব্যে তারা ‘হতভম্ব’ হয়েছে।

পাকিস্তানে গত বছর এক পুলিশ কর্মকর্তা ধর্ষণের শিকার এক নারীকে রাতে পুরুষ সঙ্গী ছাড়া বাইরে বের হওয়ার জন্য তিরস্কার করেছিলেন। ওই ঘটনার প্রতিবাদে দেশজুড়ে বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে।

পাকিস্তান থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন