ইমরানের বিরুদ্ধে ৮ মার্চ পাকিস্তানের পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ জাতীয় পরিষদে অনাস্থা প্রস্তাব জমা দেয় বিরোধী দলগুলো। সেই প্রস্তাবের ওপর ভোটাভুটির জন্য তা গত শুক্রবার দেশটির জাতীয় পরিষদে (পার্লামেন্ট) উত্থাপন করার কথা ছিল। কিন্তু প্রস্তাবটি জাতীয় পরিষদে উত্থাপন না করতেই আগামীকাল সোমবার বিকেল চারটা পর্যন্ত অধিবেশন মুলতবি ঘোষণা করেন স্পিকার আসাদ কায়সার। দেশটির দুই নেতার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে সেদিন অধিবেশন শুরুর পরপরই তা মুলতবি করা হয়।

পাঞ্জাবের কামালিয়া শহরে এক জনসভায় প্রধানমন্ত্রী ইমরান বলেন, ‘এই অপরাধীদের (বিরোধীদের) লুটপাট ও লুণ্ঠনের দিন যে শেষ হয়েছে, সেই বার্তা দিতে রোববার রাজধানীতে সবচেয়ে বড় জনসমুদ্র তৈরি হবে।’

রাষ্ট্রপরিচালিত রেডিও পাকিস্তানের খবরে বলা হয়, ইসলামাবাদের সমাবেশে যোগ দিতে জনগণের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী ইমরান।

খবরে আরও বলা হয়, পক্ষ ত্যাগ করার জন্য সরকারদলীয় আইনপ্রণেতাদের লাখো রুপির প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে বলে আবার অভিযোগ করেছেন প্রধানমন্ত্রী ইমরান।

বিরোধীদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী ইমরান বলেন, তাঁরা প্রকাশ্যে আইনপ্রণেতাদের কিনছে। নিজ দলের ভিন্নমতাবলম্বী আইনপ্রণেতারা শিগগিরই ক্ষমতাসীন দলে ফিরে আসবেন বলেও আশা প্রকাশ করেছেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী ইমরানের দাবি, দুর্নীতির মামলা বন্ধে সরকারকে ‘ব্ল্যাকমেল’ করার লক্ষ্যে তাঁর বিরুদ্ধে বিরোধীরা অনাস্থার মতো পদক্ষেপের নিতে উঠেপড়ে লেগেছে।

পাকিস্তান থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন