শাহবাজকে নিয়ে আপত্তির কথা তুলে তিনি বলেন, ‘পাকিস্তানের জন্য এর চেয়ে লজ্জার আর কী হতে পারে যে বিদেশিদের মনোনীত ও তাদের আমদানি করা সরকার এখানে বসানো হচ্ছে, যার প্রধান হচ্ছেন শাহবাজের মতো একজন ব্যক্তি।’

গতকাল পার্লামেন্টে অনাস্থা ভোটে হেরে প্রধানমন্ত্রীর পদ হারিয়েছেন ইমরান। এই সরকার পতনের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের ষড়যন্ত্র রয়েছে বলে অভিযোগ ইমরান ও তাঁর দলের। গত ৮ মার্চ বিরোধীরা পার্লামেন্টে অনাস্থা প্রস্তাব আনার পর থেকেই এ বিষয়ে বলে আসছেন ক্রিকেটতারকা থেকে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর আসনে বসা ইমরান খান।

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ নিয়ে ওয়াশিংটনের সঙ্গে সুর না মেলানোয় ইমরানের ওপর যুক্তরাষ্ট্র ক্ষুব্ধ হয়েছে বলে বলা হচ্ছে। গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে হামলা শুরু করে রাশিয়া। ওই দিনই মস্কো সফরে গিয়েছিলেন ইমরান খান। রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে বৈঠকও করেছিলেন তিনি। এই সফরে কেন গেলেন, যুক্তরাষ্ট্র সেই প্রশ্ন তুলেছে বলে জানিয়েছেন তিনি। এ ছাড়া যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের একজন কর্মকর্তা ওয়াশিংটনে নিয়োজিত পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূতকে ইমরান খানের বিষয়ে তাঁর সরকারের নেতিবাচক মনোভাবের কথা জানিয়েছিলেন বলে একটি তারবার্তায় এসেছে বলে ইমরানের অভিযোগ।

এ বিষয় তুলে ধরে ইমরান খান বারবার বলে আসছেন, তিনি পাকিস্তানের স্বাধীন পররাষ্ট্র নীতি প্রতিষ্ঠার জন্য কাজ করছিলেন। সেখানে অন্য দেশের ষড়যন্ত্রে তাঁর দেশের রাজনীতিকেরা সরকার ফেলে দিচ্ছেন।

আজ ইসলামাবাদে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে ফাওয়াদ চৌধুরী বলেন, চলমান সামগ্রিক পরিস্থিতি নিয়ে পিটিআইয়ের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির নেতারা বানি গালাতে ইমরান খানের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। জাতীয় পরিষদের অধিবেশনের শুরুতেই পিটিআই সদস্যরা যেন পদত্যাগ করেন, সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে ইমরান খানকে কেন্দ্রীয় কমিটি পরামর্শ দিয়েছে। তিনি বলেন, ‘শাহবাজ শরিফের মনোনয়নে আমাদের আপত্তি আমলে না নিলে আমরা কাল (সোমবার) পদত্যাগ করব।’
ফাওয়াদ চৌধুরী বলেন, অর্থ পাচার মামলায় দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পথে থাকা শাহবাজ প্রধানমন্ত্রী পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন, এটি চরম অবিচার।

পাকিস্তানের ফেডারেল ইনভেস্টিগেশন এজেন্সির একটি বিশেষ আদালতে (সেন্ট্রাল-১) আগামীকাল (১১ এপ্রিল) শাহবাজ ও তাঁর ছেলের অর্থ পাচার মামলায় অভিযোগ গঠনের দিন রয়েছে। কালই এ মামলায় অভিযুক্ত হতে পারেন এই পিতা-পুত্র।

প্রধানমন্ত্রীর পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতার জন্য পিটিআইয়ের ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মাহমুদ কোরেসিকে মনোনীত করা হয়েছে। দলের এ সিদ্ধান্তের কারণ ব্যাখ্যায় ফাওয়াদ চৌধুরী বলেন, নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে দিলেই তারা হবাজের মনোনয়ন চ্যালেঞ্জ করার সুযোগ পাবেন।