default-image

সঞ্চালন লাইন ঠিকভাবে রক্ষণাবেক্ষণ না হওয়ায় ও গুড্ডু বিদ্যুৎকেন্দ্রের নিরাপত্তাব্যবস্থায় ত্রুটির কারণে গত শনিবার রাতে পাকিস্তানে বিদ্যুৎ বিপর্যয় হয়।

দ্য নিউজকে বলা বিদ্যুৎ খাতের শীর্ষ কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে জিও টিভির খবরে জানানো হয়, অতিরিক্ত রিজার্ভ না থাকায় পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়েছে।

একজন বিশেষজ্ঞ জানান, বিদ্যুতের চাপের বিপরীতে সুরক্ষাব্যবস্থা কার্যকর থাকলে গুড্ডু বিদ্যুৎকেন্দ্র অকার্যকর হতো না।

বিজ্ঞাপন

জ্বালানিমন্ত্রী ওমর আইয়ুব খান বলেছেন, পাকিস্তানে বিদ্যুৎ বিপর্যয়ের কারণ অনুসন্ধানে চেষ্টা চলছে। কারণ খুঁজে পেলেই তা জানানো হবে। মন্ত্রীর দাবি, ট্রান্সমিশন লাইনে রক্ষণাবেক্ষণ ঠিকভাবে হয়েছে। নিরাপত্তাব্যবস্থাও নষ্ট হয়নি।

মন্ত্রী বলেন, গতকাল রোববার রাতে পাকিস্তানের ৮০ ভাগ জায়গায় বিদ্যুৎ সচল হয়েছে। আজ সোমবারের মধ্যে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র চালু হবে।

গুড্ডু বিদ্যুৎকেন্দ্রের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা জানান, গুড্ডু পাওয়ার হাউসের সুরক্ষাব্যবস্থার ত্রুটির কারণেই বিদ্যুৎ বিপর্যয় ঘটে। ২০১৩, ২০১৫ ও ২০১৭ সালে পাকিস্তানে একই রকম বিদ্যুৎ বিপর্যয় হয়। ট্রান্সমিশন লাইনে রক্ষণাবেক্ষণ ঠিকভাবে না হওয়ার কারণেই এমন বিপর্যয় ঘটে।

পাকিস্তানের ন্যাশনাল ট্রান্সমিশন ও ডিসপ্যাচ কোম্পানি (এনটিডিসি) বিদ্যুৎ বিপর্যয়ের ঘটনা তদন্তে চার সদস্যের কমিটি গঠন করেছে। সাত দিনের মধ্যে কমিটি তাদের তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেবে।

পাকিস্তানের রাজধানী ইসলামাবাদ, করাচি, লাহোরসহ বড় বড় শহর অন্ধকারে ছিল।

বিজ্ঞাপন
পাকিস্তান থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন