বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এদিকে, আজ যাতে ভোটাভুটি না হয়—সরকারি দলের এমন কৌশলের পাল্টা ব্যবস্থা গ্রহণে বিরোধীদলীয় নেতা শাহবাজ শরিফের চেম্বারে পরামর্শমূলক বৈঠক করেছে বিরোধী দলগুলো।

এ ছাড়া দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউন জানিয়েছে, অধিবেশন স্থগিত করার পর স্পিকার আসাদ কায়সারের চেম্বারে গিয়ে তাঁর সঙ্গে দেখা করেছেন বিরোধী দলগুলোর একটি প্রতিনিধিদল। জাতীয় পরিষদে তাঁর সাংবিধানিক দায়িত্ব পালন করে যেতে স্পিকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তারা।

বিরোধী দলগুলো দাবি করেছে, সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশনা অনুযায়ী আজই অনাস্থা প্রস্তাবের ওপর যাতে ভোটাভুটি হয়। তারা চাইছেন, সর্বোচ্চ আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী জাতীয় পরিষদ পরিচালিত হোক। সরকারি দলের সদস্যরা পার্লামেন্টে ইচ্ছা করেই হট্টগোল সৃষ্টি করছেন বলেও অভিযোগ করেছেন বিরোধীরা।

ইমরান খানের বিরুদ্ধে আনা অনাস্থা প্রস্তাবকে ‘অসাংবিধানিক’ আখ্যা দিয়ে ৩ এপ্রিল খারিজ করে দেন জাতীয় পরিষদের ডেপুটি স্পিকার কাসিম সুরি। পরে প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শে জাতীয় পরিষদ ভেঙে দেন প্রেসিডেন্ট। ওই দিনই এ নিয়ে স্বতঃপ্রণোদিত (সুয়োমোটো) শুনানি গ্রহণ করেন সুপ্রিম কোর্ট।

এরপর টানা পাঁচ দিনের দীর্ঘ শুনানি শেষে গত বৃহস্পতিবার অনাস্থা প্রস্তাব খারিজ ও জাতীয় পরিষদ ভেঙে দেওয়ার সিদ্ধান্ত অসাংবিধানিক ঘোষণা করে সর্বসম্মত রায় দেন সর্বোচ্চ আদালত। জাতীয় পরিষদ পুনর্বহাল করে আজ শনিবার অনাস্থা প্রস্তাবের ওপর ভোটাভুটিরও নির্দেশ দেন সুপ্রিম কোর্ট।

পাকিস্তান থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন