বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নতুন জুটিকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রাজনীতিক, অধিকারকর্মী, বন্ধু-বান্ধব থেকে শুরু করে টুইটারের সাধারণ ব্যবহারকারীরাও। এক টুইটে পাকিস্তানের মানবাধিকারবিষয়কমন্ত্রী শিরিন মাজারি বলেছেন, ‘অভিনন্দন, তোমাদের দুজনের সামনের জীবন চমৎকার হোক।’

টুইটে সবার ভাষা অনেকটাই একই। শুভেচ্ছা বার্তা এসেছে পাকিস্তান মুসলিম লীগ নওয়াজের (পিএমএল-এন) নেতা আহসান ইকবালের পক্ষ থেকেও। মালালাকে উদ্দেশ করে তিনি বলেছেন, ‘সুখী দাম্পত্যজীবনের জন্য শুভকামনা ও অভিনন্দন।’

বন্ধুর বিয়েতে শুভকামনা জানাতে ভোলেননি ভি কাতিভু। তিনি শিক্ষাবিষয়ক একজন অধিকারকর্মী। টুইটারে তিনি লেখেন, ‘তোমার জন্য আমি খুবই খুশি বন্ধু! আজ আমরা একটি চমৎকার দিনের সাক্ষী হলাম।’

টুইটার ছাড়িয়ে ইনস্টাগ্রামেও এসেছে মালালার জন্য শুভেচ্ছা। সেখানে জাতিসংঘে নিযুক্ত পাকিস্তানের নারীবিষয়ক দূত মুনিবা মাজারি বলেছেন, ‘আমি তোমার জন্য খুবই খুশি ছোট্ট মালালা। তোমার পরিবারের প্রতি আমার ভালোবাসা ও শুভেচ্ছা রইল।’

খুশি মালালার বাবাও। মেয়ের বিয়ের কথা জানিয়ে টুইটারে পোস্ট করেছেন মালালার বাবা জিয়াউদ্দিন ইউসুফজাই। তিনি লিখেছেন, ‘এটা ভাষায় প্রকাশ করা যাবে না। তুর পেকাই ইউসুফজাই (মালালার মা) ও আমি খুবই আনন্দিত ও কৃতজ্ঞ।’

এর আগে মালালা জানান, লন্ডনের বার্মিংহামে তাঁদের বিয়ে হয়েছে। টুইটে বর আসার মালিকের সঙ্গে বেশ কয়েকটি ছবি শেয়ার করে তিনি লেখেন, ‘আজকের দিনটি আমার জীবনের মহামূল্যবান দিন। আসার এবং আমি সারা জীবনের জন্য গাঁটছড়া বেঁধেছি। পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে স্বল্প পরিসরে বার্মিংহামের বাড়িতে বিয়ের অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। আমাদের জন্য দোয়া করবেন। বাকি জীবন আমরা একসঙ্গে কাটাতে চাই।’

নারীশিক্ষা বিস্তারের পক্ষে কাজ করার জন্য মালালা ইউসুফজাই সারা বিশ্বে ব্যাপক প্রশংসিত হন। তারই স্বীকৃতি হিসেবে ২০১৪ সালে সবচেয়ে কম বয়সী হিসেবে ভারতের কৈলাস সত্যার্থীর সঙ্গে যৌথভাবে শান্তিতে নোবেল পান মালালা।

পাকিস্তান থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন