সাংবাদিকেরা তাঁর কাছে অনাস্থা ভোট নিয়েও জানতে চেয়েছিলেন। তখন ইমরান বলেন, তিনি কোনোভাবেই পরাজয় মেনে নেবেন না। এ পিটিআই নেতা আরও বলেন, ‘আমি অঙ্গীকার করছি, কখনো পাকিস্তানের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করব না। আমি জাতীয় পরিষদের অধিবেশনে অংশ নেব।’

কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার বৈঠক নিয়ে জানতে চাইলে ইমরান বলেন, যখনই কোনো বৈঠক ডাকা হয় তখনই গুজব ছড়াতে শুরু করে। কোনো ধরনের পরিবর্তন আনা হচ্ছে না বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

এদিকে গতকাল রাতে প্রধানমন্ত্রিত্ব হারিয়েছেন ইমরান খান। পাকিস্তানের স্থানীয় সময় দিবাগত রাত ১২টার দিকে অনাস্থা প্রস্তাবের ওপর ভোটাভুটি শুরু হয়। এর কিছু সময় পর ভোটের ফল ঘোষণা করা হয়। অনাস্থা প্রস্তাবে ইমরানের বিরুদ্ধে ভোট পড়ে ১৭৪টি। ৩৪২ আসনের জাতীয় পরিষদে প্রস্তাবটি পাসের জন্য দরকার ছিল ১৭২ ভোট।

আর্থিক দুরবস্থা ও ভুল পররাষ্ট্রনীতির অভিযোগে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাবটি এনেছিল বিরোধী দলগুলো। এ অনাস্থা প্রস্তাবকে ‘অসাংবিধানিক’ আখ্যা দিয়ে ৩ এপ্রিল খারিজ করে দেন জাতীয় পরিষদের ডেপুটি স্পিকার কাসিম খান সুরি। ওই দিনই প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শে জাতীয় পরিষদ ভেঙে দেন প্রেসিডেন্ট আরিফ আলভি। এতে চরম রাজনৈতিক সংকটে পড়ে পাকিস্তান।

এ অবস্থায় স্বতঃপ্রণোদিত নোটিশ দেন সুপ্রিম কোর্ট। বিরোধীরাও আদালতের শরণাপন্ন হন। টানা পাঁচ দিনের শুনানি শেষে গত বৃহস্পতিবার অনাস্থা প্রস্তাব খারিজ ও জাতীয় পরিষদ ভেঙে দেওয়ার সিদ্ধান্ত অসাংবিধানিক ঘোষণা করেন সর্বোচ্চ আদালত। একই সঙ্গে গতকাল অনাস্থা প্রস্তাবের সুরাহার নির্দেশ দেন প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন পাঁচ বিচারপতির বৃহত্তর বেঞ্চ।