মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের ওপর নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহালের জন্য জাতিসংঘ ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) আহ্বান প্রত্যাখ্যান করেছে পাকিস্তান। এ ব্যাপারে দেশটির সরকার বলেছে, সর্বোচ্চ সাজা হিসেবে সন্ত্রাসীদের মৃত্যুদণ্ড দেওয়া আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন নয়। খবর ডনের।
গত শনিবার পাকিস্তান সরকারের দেওয়া এ বক্তব্যের আগে জাতিসংঘ ও ইইউ দেশটিকে জঙ্গিদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার চলমান প্রক্রিয়া বন্ধের আহ্বান জানিয়েছিল। এ প্রসঙ্গে পাকিস্তান সরকারের একজন মুখপাত্র বলেন, পাকিস্তান আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের (আহ্বানের) প্রতি শ্রদ্ধাশীল। কিন্তু পাকিস্তান একটি অস্বাভাবিক পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র তাসনিম আসলাম এক টুইটার বার্তায় লিখেছেন, জাতিসংঘের মানবাধিকারবিষয়ক কনভেনশনের অধীন নিজ বাধ্যবাধকতা বিষয়ে পাকিস্তান অবগত। সন্ত্রাসীদের ফাঁসিতে ঝোলানো আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন নয়।
জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুনের কার্যালয় থেকে শনিবার এক বিবৃতিতে বলা হয়, মহাসচিব ২৫ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের সঙ্গে টেলিফোন আলোচনায় মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা স্থগিত করে এর ওপর নিষেধাজ্ঞা ফের চালুর অনুরোধ জানান। নওয়াজ মহাসচিবকে আশ্বস্ত করে বলেন, সব আইনি রীতিনীতির প্রতি শ্রদ্ধা দেখিয়েই সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে সাজা ঘোষণা ও মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হবে। ইইউ–ও পাকিস্তানের প্রতি মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা বন্ধের আহ্বান জানিয়েছিল।
পেশোয়ারের স্কুলে ১৬ ডিসেম্বরের তালেবান হামলায় ১৩২ স্কুলশিশুসহ ১৪১ জন নিহত হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে এক সর্বদলীয় বৈঠকে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের ওপর ছয় বছর ধরে চলা নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়।

বিজ্ঞাপন
পাকিস্তান থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন