default-image

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সরকারি তহবিল তছরুপের অভিযোগের তদন্তে নেমে ব্রাজিলের এক সিনেটরকে নগদ অর্থসহ ধরেছে পুলিশ। পুলিশি অভিযানের সময় ওই সিনেটর তাঁর অন্তর্বাসের ভেতরে অর্থ লুকিয়ে রেখেছিলেন। তাঁর নাম চিকো রদ্রিগেজ। তিনি ব্রাজিলের কট্টর ডানপন্থী প্রেসিডেন্ট জইর বলসোনারোর ঘনিষ্ঠ।

এ নিয়ে স্থানীয় গণমাধ্যম ও গ্লোবো, ফোলহা দ্য এস, পাওলো এবং এস্তাদো ফলাও করে খবর প্রচার করেছে।

পুলিশের কর্মকর্তারা রদ্রিগেজের বাড়ি থেকে ৩০ হাজার রিয়েল নগদ অর্থ উদ্ধার করেন। বাংলাদেশি টাকায় এর পরিমাণ সাড়ে চার লাখ টাকার মতো। এর মধ্যে কিছু অর্থ তাঁর অন্তর্বাসে লুকানো ছিল। কিছু ছিল দুই নিতম্বের মাঝখানে।

বার্তা সংস্থা এএফপিকে ব্রাজিলের ফেডারেল পুলিশ বলেছে, তারা জনসাধারণের তহবিল তছরুপের সম্ভাব্য অপরাধকে ভেঙে দেওয়ার চেষ্টা হিসেবে এ অভিযান চালায়।

অন্যদিকে এক বিবৃতিতে রদ্রিগেজ বলছেন, পুলিশ তদন্তের অংশ হিসেবে এই তল্লাশি অভিযান চালায়। তবে সেখানে তিনি তাঁর কাছ থেকে নগদ অর্থ উদ্ধারের বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি।

বিজ্ঞাপন

প্রেসিডেন্ট বোলসোনারো এ ঘটনায় গণমাধ্যমের ওপর ক্ষোভ ঝাড়েন। তিনি বলেন, গণমাধ্যমগুলো তাঁর সরকারকে দুর্নীতিগ্রস্ত হিসেবে চিত্রিত করার জন্য এই ঘটনাকে উদাহরণ হিসেবে দেখাচ্ছে। বরং এ অভিযান প্রমাণ করে তাঁর সরকারের কোনো দুর্নীতি নেই। অপরাধী যে–ই হোক তার বিরুদ্ধে সরকার ব্যবস্থা নিচ্ছে।

দুর্নীতির বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ২০১৮ সালে ক্ষমতায় আসেন বোলসোনারো। কিন্তু ক্ষমতায় আসার পর থেকে বেশ কিছু কেলেঙ্কারিতে জড়িয়েছেন তিনি। এর মধ্যে তাঁর ছেলে ফ্ল্যাভিওর বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগে তদন্তের ঘটনাও রয়েছে।

বোলসোনারোর বিরুদ্ধে তাঁর সাবেক বিচারমন্ত্রীও সের্গিও মোরো অভিযোগ আনেন। পরিবারের সদস্য ও বন্ধুদের রক্ষায় প্রেসিডেন্ট পুলিশি তদন্তে হস্তক্ষেপ করার চেষ্টা করেন বলে এই অভিযোগ আনা হয়।

মন্তব্য পড়ুন 0