default-image

করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া রোধের চেষ্টায় গতকাল মঙ্গলবার ব্রাজিলের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় বাহিয়া রাজ্যে কারফিউ জারির ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। এই রোগে আক্রান্ত রোগীদের ভারে হাসপাতালগুলোর কার্যক্রম ভেঙে পড়ার উপক্রম হওয়ার প্রেক্ষাপটে এ ঘোষণা দিয়েছেন রাজ্যের গভর্নর। খবর এএফপির।

আগামী শুক্রবার রাত থেকে এক সপ্তাহের জন্য শুরু হবে এ কারফিউ। স্থানীয় সময় রাত ১০টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত চলবে কারফিউ। বাহিয়া রাজ্যের গভর্নর রুই কস্টা এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান।

রাজ্যের রাজধানী সালভাদরসহ বাহিয়ার অধিকাংশ এলাকা কারফিউয়ের আওতায় থাকবে। রাজ্যটিতে দেড় কোটি মানুষের বসবাস। সালভাদর পর্যটকদের কাছে জনপ্রিয় একটি শহর। করোনা মহামারি দেখা না দিলে চলতি সপ্তাহে শহরটিতে বার্ষিক কার্নিভাল অনুষ্ঠিত হতো।

করোনার সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া রোধে বাহিয়ার আগে বিভিন্ন সময় ব্রাজিলের আরও কিছু রাজ্য ও শহরে কারফিউ জারি করা হয়েছে। তবে প্রেসিডেন্ট জইর বলসোনারোর ফেডারেল সরকার দেশে কারফিউ বা লকডাউনের মতো পদক্ষেপের বিরোধী। সম্প্রতি বলসোনারো অর্থনৈতিক ক্ষতিকে করোনাভাইরাসের চেয়ে বেশি ক্ষতিকর বলে মন্তব্য করেন।

গভর্নর রুই কস্টা বলেন, ‘আমরা আশা করি, কারফিউ জারির মাধ্যমে মানুষের জীবন রক্ষা করা ও যাঁদের শয্যার প্রয়োজন, হাসপাতালগুলোতে তাঁদের জন্য শয্যা নিশ্চিত করা সম্ভব হবে।’

বিজ্ঞাপন

গভর্নর জানান, বাহিয়ার হাসপাতালগুলোতে নিবিড় পরিচর্যাকেন্দ্রগুলোর ৭৪ শতাংশ এখন রোগীতে পূর্ণ। কিছু হাসপাতালে নতুন করে আর রোগী ভর্তির সুযোগ নেই।

সাম্প্রতিক দিনগুলোতে বাহিয়া রাজ্যে কোভিড-১৯ রোগে মৃত্যুর সংখ্যা রাতারাতি বেড়ে গেছে। এখন পর্যন্ত রাজ্যটিতে মারা গেছেন ১০ হাজার মানুষ। আর সারা দেশে এ সংখ্যা ২ লাখ ৪০ হাজারের বেশি। বিশ্বে যুক্তরাষ্ট্রের পর করোনায় সবচেয়ে বেশি মানুষের মৃত্যুর রেকর্ড ব্রাজিলের।

করোনার সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া রোধে বাহিয়ার আগে বিভিন্ন সময় ব্রাজিলের আরও কিছু রাজ্য ও শহরে কারফিউ জারি করা হয়েছে। তবে প্রেসিডেন্ট জইর বলসোনারোর ফেডারেল সরকার দেশে কারফিউ বা লকডাউনের মতো পদক্ষেপের বিরোধী। সম্প্রতি বলসোনারো অর্থনৈতিক ক্ষতিকে করোনাভাইরাসের চেয়ে বেশি ক্ষতিকর বলে মন্তব্য করেন।

দক্ষিণ আমেরিকা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন