default-image

করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে পেরুর এক–তৃতীয়াংশ এলাকায় দুই সপ্তাহের জন্য লকডাউনের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে রাজধানী লিমাও। দেশটিতে সংক্রমণ উল্লেখযোগ্য হারে বেড়ে যাওয়ায় এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। খবর বিসিসির।

প্রেসিডেন্ট ফ্রান্সিসকো সাগাস্টি বলেছেন, করোনায় সংক্রমণ এত বেড়েছে যে হাসপাতালের চিকিৎসা কার্যক্রম ভেঙে পড়ার উপক্রম হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে ৩১ জানুয়ারি থেকে আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ১০টি অঞ্চলে লকডাউন কার্যকর হবে।

চীন থেকে করোনা মহামারি ছড়িয়ে পড়তে থাকার পর এর সংক্রমণ ঠেকাতে লাতিন আমেরিকার যেসব দেশ দ্রুত ও কঠোর লকডাউনের ব্যবস্থা গ্রহণ করে, পেরু তাদের অন্যতম। কিন্তু দুর্বল স্বাস্থ্যসেবার ব্যবস্থা, কিছু আর্থসামাজিক সমস্যা, যেমন: জনবহুল শহরগুলোয় সামাজিক দূরত্ব কঠোরভাবে বজায় না রাখা, এসব কারণে ওই পদক্ষেপ দেশটিতে তেমন কাজে আসেনি।

লকডাউন চলাকালে নতুন বিধিনিষেধের আওতায় অপরিহার্য নয়, এমন সব দোকান, বিমানের অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট, ইউরোপ ও ব্রাজিল থেকে আসা ফ্লাইট এবং ভ্রমণ বন্ধ থাকবে।

বিজ্ঞাপন

পেরুতে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১০ লাখের বেশি মানুষ। মারা গেছেন ৪০ হাজার। জনস হপকিনস ইউনিভার্সিটি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

চীন থেকে করোনা মহামারি ছড়িয়ে পড়তে থাকার পর এর সংক্রমণ ঠেকাতে লাতিন আমেরিকার যেসব দেশ দ্রুত ও কঠোর লকডাউনের ব্যবস্থা গ্রহণ করে, পেরু তাদের অন্যতম। কিন্তু দুর্বল স্বাস্থ্যসেবার ব্যবস্থা, কিছু আর্থসামাজিক সমস্যা, যেমন: জনবহুল শহরগুলোয় সামাজিক দূরত্ব কঠোরভাবে বজায় না রাখা, এসব কারণে ওই পদক্ষেপ দেশটিতে তেমন কাজে আসেনি।

দক্ষিণ আমেরিকা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন