default-image

করোনাভাইরাসের (কোভিড–১৯) টিকা নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ ওঠায় গতকাল শুক্রবার পদত্যাগ করেছেন আর্জেন্টিনার স্বাস্থ্যমন্ত্রী। তাঁর এমন পদক্ষেপের আগে খবর বের হয়, উপযুক্ত নন এমন ব্যক্তিরাও নানা মাধ্যমে করোনার টিকা পাচ্ছেন। রয়টার্সের খবর।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী গাইনস গঞ্জালেস টুইটারে পোস্ট করা এক চিঠিতে বলেন, তাঁর কার্যালয়ের অনিচ্ছাকৃত কিছু ত্রুটির কারণে কেউ কেউ যথাযথ প্রক্রিয়ার বাইরে গিয়ে টিকা নেওয়ার সুযোগ পেয়েছেন।

চলতি মাসের শুরুর দিকে টিকা কেলেঙ্কারির জেরে পেরুর স্বাস্থ্য ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীও পদত্যাগ করেন। এ ছাড়া দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে ফৌজদারি তদন্ত শুরু হয়। এর আগে খবর বেরোয়, পেরুর কয়েক শ সরকারি কর্মকর্তা–কর্মচারী টিকার ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল ও জাতীয় টিকাদান কর্মসূচি শুরু হওয়ার আগেই টিকা নেওয়া শুরু করেছেন।

গতকাল শুক্রবার সকালে আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্ট কার্যালয়ের দুটি সূত্র জানায়, যথাযথ প্রক্রিয়া ছাড়াই অন্তত ১০ জন করোনার টিকা নিয়েছেন, গণমাধ্যমে এমন অভিযোগ ওঠার পর প্রেসিডেন্ট আলবার্তো ফার্নান্দেজ স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে পদত্যাগ করার আহ্বান জানান। টিকা নেওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে একজন প্রবীণ সাংবাদিকও আছেন। এই সাংবাদিক দাবি করেন, সরাসরি মন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলার পর তিনি টিকা নিতে পেরেছেন।

বিজ্ঞাপন

টিকা সরবরাহের ঘাটতির মধ্যে এমন কেলেঙ্কারির খবরে পুরো লাতিন আমেরিকায় টিকা পাওয়া ও এ নিয়ে দুর্নীতির আশঙ্কা করা হচ্ছে।

চলতি মাসের শুরুর দিকে টিকা কেলেঙ্কারির জেরে পেরুর স্বাস্থ্য ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী পদত্যাগ করেন। এ ছাড়া দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে ফৌজদারি তদন্ত শুরু হয়। এর আগে খবর বেরোয়, পেরুর কয়েক শ সরকারি কর্মকর্তা–কর্মচারী টিকার ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল ও জাতীয় টিকাদান কর্মসূচি শুরু হওয়ার আগেই টিকা নেওয়া শুরু করেছেন।

দক্ষিণ আমেরিকা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন