default-image

করোনার টিকা কেলেঙ্কারিতে পদত্যাগ করেছেন আর্জেন্টিনার স্বাস্থ্যমন্ত্রী গিনেস গঞ্জালেস গার্সি। আর্জেন্টাইন প্রেসিডেন্ট আলবার্তো ফার্নান্দেজের নির্দেশের পর স্থানীয় সময় গতকাল শুক্রবার প্রেসিডেন্টের কার্যালয়ে তিনি পদত্যাগপত্র জমা দেন।

প্রেসিডেন্টকে লেখা চিঠিতে ৭৫ বছর বয়সী স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আপনার অনুরোধে সাড়া দিয়ে আমি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পদ থেকে সরে দাঁড়াতে পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছি।’
আন্তর্জাতিক বার্তা সংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে বলা হয়, গার্সির পদত্যাগের পর তাঁর সহকারীদের মধ্য থেকে কার্লা ভিজোত্তিকে মন্ত্রিত্ব দেওয়া হবে। রাশিয়া থেকে স্পুতনিক-ভি টিকা আর্জেন্টিনায় আনার প্রক্রিয়ায় কার্লার বিশেষ ভূমিকা ছিল। দক্ষিণ আমেরিকার প্রথম দেশ হিসেবে রাশিয়ার তৈরি এই টিকা নিজেদের দেশে অনুমোদন ও ব্যবহার শুরু করে আর্জেন্টিনা।

বিজ্ঞাপন

এর আগে আর্জেন্টিনার স্বাস্থ্যমন্ত্রী গিনেস গঞ্জালেস গার্সিকে পদত্যাগ করতে বলেন দেশটির প্রেসিডেন্ট আলবার্তো ফার্নান্দেজ। স্থানীয় সময় গতকাল স্বাস্থ্যমন্ত্রীর উদ্দেশে এ কথা বলেন প্রেসিডেন্ট। স্বাস্থ্যমন্ত্রীর বন্ধু পরিচয় দিয়ে জালিয়াতির মাধ্যমে এক ব্যক্তির করোনার টিকা নেওয়ার তথ্য ফাঁস হওয়ার পর তাঁকে এ কথা বলেন প্রেসিডেন্ট।

এএফপির প্রতিবেদনে বলা হয়, আর্জেন্টিনায় এখন পর্যন্ত স্বাস্থ্যকর্মীদের করোনার টিকা দেওয়া হয়েছে। আগামী বুধবার থেকে আর্জেন্টিনার বুয়েনস এইরেসে সত্তুরোর্ধ্ব নাগরিকদের টিকা দেওয়া শুরু হবে।

আর্জেন্টিনার স্থানীয় এক রেডিওতে ৭১ বছর বয়সী সাংবাদিক হোরাসিও ভারবিতিস্কি বলেন, স্বাস্থ্যমন্ত্রী গিনেস গঞ্জালেস গার্সিয়ার সঙ্গে তাঁর দীর্ঘদিনের বন্ধুত্ব। এই পরিচয় ব্যবহার করে তিনি স্বাস্থ্যমন্ত্রীর কার্যালয়ে ইতিমধ্যেই করোনার টিকা নিয়েছেন। তাঁর এই মন্তব্যের পর স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, সরকারের ঘনিষ্ঠ ব্যক্তিরাও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে করোনার টিকা নিয়েছেন।

আর্জেন্টাইন কর্তৃপক্ষের বরাতে এএফপির প্রতিবেদনে বলা হয়, ৬০ বছর বয়সী প্রেসিডেন্ট ফার্নান্দেজ সাধারণ নাগরিকদের টিকা গ্রহণে উৎসাহিত করতে ক্যামেরার সামনে টিকা নিয়েছেন। প্রেসিডেন্টের কার্যালয়ের প্রধান কর্মকর্তাকে তিনি নির্দেশ দিয়েছেন যাতে স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে পদত্যাগ করতে বলা হয়।

এএফপির তথ্যমতে, আর্জেন্টিনার মোট জনসংখ্যা প্রায় সাড়ে চার কোটি। দেশটিতে ২০ লাখ করোনাভাইরাসে সংক্রমিত রোগী শনাক্ত করা হয়েছে, মৃত্যু হয়েছে ৫০ হাজারের বেশি মানুষের।

এদিকে দক্ষিণ আমেরিকার আরেক দেশ পেরুতে জালিয়াতি করে আগেই করোনার টিকা নেওয়ায় অন্তত ৫০০ সরকারি কর্মকর্তাকে অভিযুক্ত করা হয়েছে। তাঁদের মধ্যে সাবেক প্রেসিডেন্ট মার্টিনও রয়েছেন। ইতিমধ্যে এই ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পেরুর দুর্নীতি দমন কমিশন।

বিজ্ঞাপন
দক্ষিণ আমেরিকা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন