default-image

ভেনেজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকোলা মাদুরো বলেছেন, দেশের মানুষের জন্য তেলের বদলে করোনার টিকা নিতে চান তিনি। গতকাল রোববার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন চ্যানেলের এক অনুষ্ঠানে হাজির হয়ে এ কথা বলেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট।

বার্তা সংস্থা এএফপির খবরে বলা হয়েছে, বর্তমানে ভেনেজুয়েলায় করোনার টিকা হিসেবে রাশিয়ার তৈরি স্পুতনিক ভি ও চীনের কোম্পানি সিনোফার্মের তৈরি টিকার অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। গতকালের টেলিভিশন অনুষ্ঠানে নিকোলা মাদুরো বলেছেন, ‘ভেনেজুয়েলার তেলের ট্যাংকার আছে। তেল কেনার মতো ক্রেতাও আমাদের আছে। আমরা প্রয়োজনে তেলের উৎপাদনের কিছু অংশ করোনার টিকা পাওয়ার জন্য বরাদ্দ করতে পারি। তেলের বদলে টিকা!’

ভেনেজুয়েলায় বর্তমানে করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ চলছে। দেশটি বিভিন্ন ধরনের অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞার মধ্যেও আছে। এসব নিষেধাজ্ঞা মূলত দেশটির তেল খাতকে লক্ষ্য করেই জারি করা হয়েছে। এসব অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞায় প্রধানত ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে ভেনেজুয়েলার তেল খাত।

বিজ্ঞাপন

১৫ মার্চ প্যান আমেরিকান হেলথ অরগানাইজেশনকে (পিএএইচও) ভেনেজুয়েলা আনুষ্ঠানিকভাবে জানিয়ে দেয়, অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি টিকা তারা গ্রহণ করবে না। যদিও আগে কোভ্যাক্স উদ্যোগের আওতায় ১৪ থেকে ২৫ লাখ ডোজ অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি টিকা নিতে চেয়েছিল দক্ষিণ আমেরিকার এই দেশ। তবে এসব টিকা এখনো সরবরাহ করা হয়নি।

ভেনেজুয়েলা গত ফেব্রুয়ারি থেকেই দেশটির স্বাস্থ্যকর্মীদের করোনার টিকা দেওয়ার কর্মসূচি শুরু করেছে। তবে টিকা প্রদান কর্মসূচির বিষয়ে অল্প তথ্যই প্রকাশ করেছে দেশটি। সরকারি হিসাব অনুযায়ী, দেশটিতে প্রায় দেড় লাখ মানুষ কোভিড-১৯ রোগে আক্রান্ত হয়েছে এবং তাতে মৃত্যু হয়েছে দেড় হাজারের কম মানুষের।

তবে সাম্প্রতিক সময়ে ভেনেজুয়েলায় করোনার সংক্রমণে ঊর্ধ্বগতি দেখা যাচ্ছে। দেশটিতে ব্রাজিলে শনাক্ত হওয়া করোনার ধরনের উপস্থিতি নিশ্চিত হওয়া গেছে। এ ঘটনায় বেশ উদ্বিগ্ন ভেনেজুয়েলার সরকার।

দক্ষিণ আমেরিকা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন