default-image

দুর্নীতির অভিযোগে অভিশংসিত পেরুর প্রেসিডেন্ট মার্টিন ভিজকারার পক্ষে রাস্তায় বিক্ষোভ করেছেন হাজারো সমর্থক। পুলিশ ও অধিকার গ্রুপগুলো গতকাল শুক্রবার জানিয়েছে, দেশটিতে পুলিশ ও বিক্ষোভাকারীদের মধ্যে সংঘর্ষে ২৭ জন আহত হয়েছেন। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

পেরুর রাজধানী লিমাসহ কয়েকটি শহরে এ বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে। এতে দেশটির বিভক্ত কংগ্রেস ও প্রেসিডেন্ট ম্যানুয়েল মেরিনোর নতুন সরকারের ওপর চাপ বাড়ছে।

গত বৃহস্পতিবার রাতে পুলিশ বিক্ষোভকারীদের ওপর টিয়ার গ্যাস ও রাবার বুলেট ছোড়ে। পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছোড়েন বিক্ষোভকারীরা। এতে দোকানপাটের জানালা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

রয়টার্স বলেছে, পেরুর সরকারবিরোধী এ বিক্ষোভ দুই দশকের মধ্যে দেশটির সর্ববৃহৎ।

বিজ্ঞাপন

পেরুর প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে সরকারি অর্থ অপব্যবহারের অভিযোগ ওঠে। তবে নিজের বিরুদ্ধে আনা সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন ৫৭ বছর বয়সী এ আইনপ্রণেতা। তিনি ভোটারদের কাছে জনপ্রিয় হলেও কংগ্রেসে তাঁর পক্ষের লোক ছিলেন না।

কংগ্রেসের প্রধান পপুলার অ্যাকশন দলের সদস্য মেরিনো বৃহস্পতিবার তাঁর নতুন মন্ত্রিসভায় শপথ নিয়েছেন। তিনি বিক্ষোভকারীদের শান্ত হওয়ার আহ্বান জানান।

পেরুর জাতীয় মানবাধিকার সমন্বয়ক বলেন, বৃহস্পতিবার সাংবাদিকসহ ১১ জন আহত হন। লিমার হাসপাতাল সূত্র জানিয়েছে, দুজন রাবার বুলেটের আঘাতে আহত হয়েছেন।

পুলিশ বলছে, তাদের সদস্যসহ মোট আহতের সংখ্যা ২৭।

ভিজকারার মেয়াদ ছিল ২০২১ সালের জুলাই পর্যন্ত। ওই সময় পর্যন্ত মেরিনো দায়িত্ব সামলাবেন।
মেরিনো নিশ্চিত করেছেন, ১১ এপ্রিল প্রেসিডেন্টের ভোট হবে। তত দিন পর্যন্ত সবাইকে শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন। দেশটির স্থানীয় টেলিভিশনে মেরিনো বলেন, ‘আমি ইতিমধ্যে নির্বাচনের তারিখ জানিয়ে দিয়েছি।’

মন্তব্য পড়ুন 0