default-image

ট্রাম্প প্রশাসনের কঠোর অভিবাসন নীতিতে বিচ্ছিন্ন পরিবারগুলোর পুনর্মিলনে কাজ করছেন জো বাইডেন। স্বামীর এ প্রচেষ্টায় সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিচ্ছেন ফার্স্ট লেডি জিল বাইডেনও। গত শুক্রবার হোয়াইট হাউসের পক্ষ থেকে এ তথ্য জানানো হয়।

নির্বাচনী প্রচারের সময়েই জো বাইডেন বিচ্ছিন্ন পরিবারগুলোকে একত্র করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। সে প্রতিশ্রুতি রক্ষায় আগামী মঙ্গলবার একটি টাস্কফোর্স ঘোষণার পরিকল্পনা করছেন তিনি।

হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র জেন সাকি বলেছেন, ব্যক্তিগতভাবে বিষয়টি সমাধানে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন বাইডেন। তিনি তা রাখবেন। যে টাস্কফোর্স তৈরি করা হবে, তার দায়িত্বে থাকবেন বাইডেনের ঘনিষ্ঠ আলেজান্দ্রো মেয়রকাস। হোমল্যান্ড সিকিউরিটি বিভাগের মন্ত্রী হিসেবে সিনেট থেকে অনুমোদনের অপেক্ষায় আছেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

জিল বাইডেন (৬৯) শিক্ষা বিষয়ে ডক্টরেট ডিগ্রিধারী। স্বামী প্রেসিডেন্ট থাকলেও তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা চালিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন। গত ডিসেম্বরে তিনি টেক্সাস সীমান্তের কাছে মেক্সিকোর একটি অভিবাসী শিবির পরিদর্শন করেন। ওই সময় তিনি বলেন, ‘আমরা বরণ করে নেওয়ার জাতি। কিন্তু সীমান্তে আমরা সে বার্তা পাঠাই না।’

জিল বাইডেনের এ মন্তব্য আগের ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্পের পুরোপুরি উল্টো। সাবেক ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্প ২০১৮ সালে শিশুদের একটি শিবির পরিদর্শন করে সমলোচনার মুখে পড়েছিলেন।

ট্রাম্প প্রশাসনের কঠোর অভিবাসন নীতিমালার কারণে শত শত অভিবাসী পরিবার বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। অনেক শিশুকে পরিবার থেকে আলাদা করে ফেলা হয়েছে এবং যুক্তরাষ্ট্র থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে। তবে বাবা-মায়ের কাছ থেকে শিশুদের পৃথক করে রাখার ঘটনা নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পিছু হটেন ট্রাম্প।

পরে আদালত পরিবারগুলোকে একত্রে থাকার আদেশ দেন। কর্তৃপক্ষ ২ হাজার ৭০০ শিশুকে পরিবারের সঙ্গে থাকতে দেওয়ার প্রয়োজনীয়তার কথা জানায়। কিন্তু এখনো ৬১১ শিশুর পরিবার যুক্তরাষ্ট্রে ফিরতে পারেনি।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে বের করে দেওয়া এসব পরিবার নিজ দেশে আটকে রয়েছে। তাদের আবার ফেরত আসার সুযোগ দিতে আহ্বান জানিয়েছে আমেরিকান সিভিল লিবার্টিজ ইউনিয়ন (এসিএলইউ)।

অভিবাসন নীতি আধুনিকায়নে মঙ্গলবার চুক্তি স্বাক্ষর করবেন বাইডেন। হোয়াইট হাউসের পক্ষ থেকে বলা হয়, হোমল্যান্ড সিকিউরিটি বিভাগে নতুন মন্ত্রীর বিষয়টি নিশ্চিত করতে বিলম্ব হওয়ায় এ চুক্তিতে দেরি হচ্ছে।

প্রেস সেক্রেটারি জেন সাকি বলেন, মন্ত্রী হিসেবে মনোনয়ন পাওয়া মেয়রকাস অভিবাসী পরিবারগুলোর পুনর্মিলনী গঠিত টাস্কফোর্সের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

বিজ্ঞাপন
যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন